বৃহস্পতিবার, জুন ২০

শিরোনাম

বাজেটের ডকুমেন্ট পাওয়া যাবে যেসব ওয়েবসাইটে * প্রধানমন্ত্রীর বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলন কাল * বরগুনায় আগুনে দগ্ধ গৃহবধূকে ঢাকায় স্থানান্তর * মানিকগঞ্জে শিশু ধর্ষণচেষ্টা মামলায় একজনের ৫ বছরের কারাদণ্ড

বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তানের স্মরণীয় ৫ ম্যাচ

0
বিশ্বকাপ আসরের ১৭তম ম্যাচে আজ মুখোমুখি হচ্ছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া ও একবারের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হবে।
ভারত পাকিস্তান ম্যাচের মতোই লড়াই হয়ে থাকে এ দু’দলের। তবে, অজিদের তুলনায় বিশ্বকাপের মঞ্চে ও তার বাহিরে অনেকটা পিছিয়ে সরফরাজরা।
এখন পর্যন্ত ১০৩ দেখায় ৬৭টিতে জয় পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া আর পাকিস্তান পেয়েছে ৩২টিতে। একটি টাই আর তিনটি হয়েছে পরিত্যক্ত।
অপরদিকে, বিশ্বকাপের মঞ্চে নয়বারের দেখায় অজিদের ৫ জয়ের বিপরীতে সরফরাজরা জয়ে পেয়েছে ৪টিতে। আজকের ম্যাচটিও যে রোমাঞ্চকর হবে তা বলাই যায়। তবে আজও রয়েছে বৃষ্টির শঙ্কা।
মজার ব্যাপার হলো, ওয়ানডেতে এ দল দুটির প্রথম দেখা হয়ছিল বিশ্বকাপের মঞ্চে। ১৯৭৫ বিশ্বকাপে লিডসে প্রথম দেখায় অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল ৭৩ রানে।
আসুন জেনে নেওয়া যাক বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তানের আলোচিত পাঁচ ম্যাচ যেমন ছিল-
লাহোর, ১৯৮৭ :
১৯৮৭ সালের বিশ্বকাপের চতুর্থ আসরে সেমিফাইনালে দেখা হয়েছিল পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার। সেই ম্যাচে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ২৬৭ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া। ডেভিড বুন খেলেছিলেন ৬৫ রানের ইনিংস। পরে অজি পেসার ক্রেগ ম্যাকডারমটের বোলিং তোপে ১৮ রানে ম্যাচ জিতে ফাইনালে যায় অস্ট্রেলিয়া। ৪৪ রানে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। ফাইনালে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া।
লিডস, ১৯৯৯ :
১৯৯৯ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে দেখা হয়েছিল পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার। সেই ম্যাচে পাকিস্তান তুলেছিল ৮ উইকেটে ২৭৫ রান। ইনজামাম-উল-হক খেলেছিলেন ৮১ রানের ইনিংস। জবাবে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানি বাঁহাতি পেসার ওয়াসিম আকরাম ও স্পিনার সাকলাইন মুশতাকের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে অজিরা অল আউট হয় ২৬৫ রানে। ওয়াসিম ৪০ রানে ৪ ও সাকলাইন ৫১ রানে নিয়েছিলেন ৩ উইকেট।
লর্ডস, ১৯৯৯ :
ফাইনালে কিন্তু সহজ জয়ই পায় অস্ট্রেলিয়া। কিংবদন্তি লেগ স্পিনার শেন ওয়ার্ন ৩৩ রানে ৪ উইকেট ও পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা ১৩ রানে ২ উইকেট নিয়ে মাত্র ১৩২ রানে বেঁধে ফেলেন পাকিস্তানকে। জবাব দিতে নেমে মাত্র ২০.১ ওভার খেলে ৮ উইকেটের সহজ জয় পায় অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জেতে তারা।
জোহানেসবার্গ, ২০০৩ :
২০০৩ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। আগে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানি পেস অ্যাটাকে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। ৮৬ রানে ৪ উইকেট হারায়। দলীয় ১৪৫ রানে পঞ্চম উইকেটের পতন ঘটে। কিন্তু অ্যান্ড্রু সায়মন্ডসের ১২৫ বলে অপরাজিত ১৪৩ রানের ইনিংসে ৮ উইকেটে ৩১০ রান করে অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ২২৮ রানে অল আউট হয় পাকিস্তান। ২০০৩ বিশ্বকাপও জেতে অস্ট্রেলিয়া।
অ্যাডিলেড, ২০১৫ :
সবশেষ ২০১৫ বিশ্বকাপে মুখোমুখি হয়েছিল পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া। সুপার এইটের ম্যাচে পাকিস্তানকে ৬ উইকেটে হারিয়েছিল অজিরা।
তবে ম্যাচের আলোচিত বিষয় ছিল অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান শেন ওয়াটসনকে করা পাকিস্তানি পেসার ওয়াহাব রিয়াজের বোলিং স্পেলটি।
দারুণ গতি, সুইং ও বাউন্স ছিল ওয়াহাবের বোলিংয়ে। তবে শেষ পর্যন্ত ওয়াটসনের অপরাজিত ৬৪ রানে ভর করে সহজ জয়ে সেমিফাইনালে যায় অস্ট্রেলিয়া। ২০১৫-তে রেকর্ড পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া।
ইংল্যান্ডের মাটিতে এখন পর্যন্ত আটটি ম্যাচ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। তার পাঁচটি জিতেছে অজিরা। তিন জয় পাকিস্তানের। সবশেষ ২০০৪ সালে লর্ডসে খেলেছিল দুই দল। সেই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া জয় পায় ১০ রানে।
এদিকে আজকের ম্যাচকে ঘিরে গত ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় পাওয়ায় কিছুটা স্বস্তিতে সরফরাজরা। উল্টো চিত্র অস্ট্রেলিয়া শিবিরে।
আফগানিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেলেও সবশেষ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে হার এবং মার্কাস স্টোয়নিসের ইনজুরির কারণে অস্বস্তিতে অ্যারন ফিন্সরা। মূল লড়াইটা এখন মাঠে গড়ার অপেক্ষায়
Share.

About Author

Leave A Reply