বুড়িচংয়ে পেট্রোল দিয়ে গায়ে আগুন দেওয়া সেই পরকিয়া প্রেমিক মারা গেছেন

0
এমদাদুল হক রনি ।। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার নিমসার এলাকায় স্ত্রীর পরকিয়া প্রেমিকের গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন দেওয়া সেই প্রেমিক ড্রাইভার জহিরুল ইসলাম ৪২ ঘন্টা মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে বুধবার বিকালে মারা গেলেন। গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় অপর ট্রাক ড্রাইভার মোসলেম উদ্দিনের স্ত্রী আমেনা বেগমের সঙ্গে পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক মেনে নিতে না পেরে ড্রাইভার জহিরুল ইসলাম এর গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়।
পুলিশ ও স্হানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম জানান জেলার দাউদকান্দি উপজেলার দক্ষিণ মোহাম্মদ পুর ইউনিয়নের ময়ল বড় কোটা গ্রামের রৌশন আলীর ছেলে জহিরুল ইসলাম (৩৬)। সে দীর্ঘ ১৭-১৮ বছর ধরে বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়ন এর নিমসার তার মামাে সুরুজ মোল্লার বাড়ী থেকে ট্রাক ড্রাইভারীকরত। ট্রাক ড্রাইভারী করতে গিয়ে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার সৈয়দ পুর গ্রামের ড্রাইভার মোসলেম উদ্দিনের সঙ্গে বন্ধুত্ব পূর্ন সম্পর্ক গড়ে উঠে। তাদের দুই জনের বাড়িতে আসা যাওয়ার মধ্যে মোসলেমের স্ত্রী আমেনা বেগমের সঙ্গে পরকিয়ার সম্পর্ক গড়ে উঠে। এদিকে আমেনা বেগমের ৪ সন্তান অপর দিকে জহিরুল ইসলাম এর ৩ মেয়ে ১ ছেলে রয়েছে। বড় মেয়ে লিমা (১৩) ৮ম শ্রেণির ছাত্রী, শিলা (৯)৫ম শ্রেণির ছাত্রী, মারিয়া (৭) ৩য় শ্রেণির ছাত্রী, শিফা (৫) প্লে শ্রেণির ছাত্রী এবং দেড় বছরে ছেলে আবদুল্লাহ। অন্য দিকে কয়েক মাস আগে জহিরুল ইসলাম এর স্ত্রী আমেনা বেগম স্বামী সন্তান পেলে তার বাপের বাড়ি চলে যায়। এতে মোসলেম উদ্দিন মানসিক ভাবে বিকারগ্রস্হ হয়ে যায় এবং ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় মোসলেম উদ্দিন কৌশলে জহিরুল ইসলাম কে উপজেলার নিমসার পেট্রোল পাম্পের সংলগ্ন গ্রামীন হোটেলের ছাদে নিয়ে গিয়ে দুই জনের মধ্যে তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে জহিরুল ইসলাম এর গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। তখন জহিরুল ইসলাম বাঁচার তাগিদে চিৎকার করে সিড়ি দিয়ে শরীরে জলন্ত আগুন নিয়ে নামতে দেখে স্হানীয় লোকজন পানি দিয়ে আগুন নিবিয়ে ফেলে। এসময় আগুন লাগিয়ে দেওয়া মোসলেম উদ্দিন পালিয়ে যেতে চাইলে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করে। আহত পরকিয়া প্রেমিক জহিরুল ইসলাম কে প্রথমে কুমেকে নিলে রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করে। দীর্ঘ ৪২ ঘন্টা চিকিৎসাধীন থেকে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মেনে বুধবার বিকাল সাড়ে ৫ টায় মৃত্যু বরন করেন। ডাক্তারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায় জহিরুল ইসলাম এর শরীর আগুনে ৭০ ভাগ পুড়ে গেছে। মৃত্যুর বিষয়টি স্হানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন।
এঘটনায় নিহতের বড় ভাই মনির হোসেন বাদী সোমবার রাতে একটি মামলা দায়ের করেন।
Share.

About Author

Leave A Reply