তিনি ভিসি না ওসি? । অন নিউজ

6

অন নিউজ ডেক্স।।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ভিসির উদ্দেশে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ভিসি এবং তার স্বামী ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিতরণ করেছেন। তিনি কি ভিসি না ওসি?

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংসদ বাতিল ও সরকারের পদত্যাগ দাবিতে নাগরিক ঐক্য আয়োজিত নাগরিক সমাবেশের সভাপতি এবং প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মান্না বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। ২৪তলা একটি বিল্ডিং বানানো হবে। সেখানে শত শত গাছ কাটা হয়েছে। সেখানে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট করে বিল্ডিং বানানো হচ্ছে। পরিবেশ ধ্বংস করে আমরা উন্নয়ন চাই না।

তিনি আরও বলেন, জাবির ভিসি ফারজানা ইসলাম এবং তার স্বামী ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিতরণ করেছেন। তিনি কি ভিসি না ওসি? ছাত্র-ছাত্রীরা তার দুর্নীতির বিরুদ্ধে যখন আন্দোলন করছে তখন ছাত্রদের ওপর হামলা চালানো হয়।

সাবেক এই ভিপি বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী নাকি বলেছেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনকারীদের উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করতে হবে। না হলে আন্দোলনকারীদের শাস্তি পেতে হবে। জাবির ভিসি নাকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন রেহানা সঙ্গে পড়াশোনা করতেন। তাহলে কি প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের সঙ্গে যুক্ত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে কোনো আন্দোলন করা যাবে না।

বর্তমান সরকার প্রধানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিরাপদ নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও নিরাপদ নয়। ছাত্ররা শান্তিতে পড়াশোনা করবেন তারও কোনো পরিবেশ নেই। বাংলাদেশের কৃষক এবং খামারিরাও নিরাপদ নয়।

সরকারের উন্নয়ন প্রসঙ্গে সমালোচনা করে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের চাটুকাররা বলছেন বাংলাদেশে এত উন্নয়ন হয়েছে, যে সারা বিশ্বে নাকি বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল। দুনিয়ার বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশকে দেখে দেখে উন্নয়ন করছে। বিশ্ব নাকি বাংলাদেশের উন্নয়ন রোল মডেল ছাড়া তাদের দেশে উন্নয়ন করতে পারে না।

তিনি আরও বলেন, উন্নয়নের নামে ঢাকা শহরে ভেতরে ভেতরে সাহিত্যিক ক্যাসিনো চালু হয়ে গেছে যার কোনো খবর কেউ জানে না। অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা এবং জুয়ার সঙ্গে বিএনপি, নাগরিক ঐক্য এবং বাম দলের কেউ জড়িত নয়। সবকটি চুরি এবং ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে সরকার দলীয় লোকজন জড়িত। তারা হত্যাকারী, ধর্ষণকারী এবং লুটপাটকারী। নুসরাত জীবন দিয়ে এটা প্রমাণ করেছে এই সরকারের আমলে কোনো নারী নিরাপদ নয়।

বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বর্তমানে দেশ কোন সাধারণ নাগরিকের জন্য না। এই দেশ লুটপাটকারী, দুর্নীতিবাজ ও ধর্ষণকারীদের। অনেক রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের স্বাধীনতা। এটাই কি আমাদের স্বাধীনতার অর্জন? এই প্রশ্ন অনেকেই করবে এবং তার জবাব সরকারকে দিতে হবে।

চলমান শুদ্ধি অভিযানের বিষয় মান্না বলেন, শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। দেশকে, প্রশাসনকে, রাজনীতিকে কাকে সভ্য করতে চান। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অভিযোগ করেছিলেন তার কাছে নাকি ছাত্রলীগ চাঁদা দাবি করেছে। এত বড় অপরাধ তিনি কিভাবে করবেন। ভিসি প্রকল্পের টাকা লুট করে ছাত্রলীগকে চাঁদা দিয়েছে। তারপরেও তার কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় না। পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছেন না।

নাগরিক সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সার, কেন্দ্রীয় নেতা ডা. জাহেদুর রহমান, অ্যাভোকেট ফজলুল হক সরকার, সোহরাব হোসেন, মমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

আরো পড়ুন