প্রেমের জেরে ছাত্রকে হত্যার অভিযোগ

1

অনলাইন ডেক্স।।

স্কুল ছাত্র ইমরানকে হত্যার পর আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা।

বরগুনায় প্রেমের সম্পর্কের জেরে নবম শ্রেণির এক ছাত্রকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে মেয়ের বাবার বিরুদ্ধে। অপমৃত্যু স্বীকার করলেও ঘটনার তিন সপ্তাহেও মামলা নেয়নি পুলিশ। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, অভিযুক্তরা প্রভাবশালী হওয়ায় কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না পুলিশ।

গত ২৭শে অক্টোবর রাতে তড়িঘরি করে বাসা থেকে বের হয় বরগুনার ক্রোক এলাকার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইমরান। সিসিটিভি ফুটেজে বের হতে দেখা গেলেও আর ফিরতে দেখা যায়নি। পরদিন ভোরে স্থানীয় একটি মসজিদের টিনের চালা থেকে ইমরানের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

শুরুতে আত্মহত্যা বলে প্রচারের চেষ্টা করে অভিযুক্ত স্কুল শিক্ষক আসলামের পরিবার। পরে, পালিয়ে যায় তারা। নিহতের স্বজনরা জানান, নিহত ইমরানের গলায় বেল্ট এবং দড়ির দাগ ছিলো। সে যদি আত্মহত্যা করত তবে এমন হতো না। এখন তারা ইমরান হত্যার বিচার চান।

প্রতিবেশীরা বলছেন, প্রেমের সম্পর্কের কারণে এর আগেও ইমরানকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন আসলাম। একে হত্যাকাণ্ড দাবি করে আসলামের পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলে ইমরানের পরিবার। একই সঙ্গে, পুলিশের ভূমিকায় হতাশা জানান তারা।

নিহত ইমরানের মা কুলসুম বেগম জানান, যে মেয়েটির সঙ্গে ইমরানের সম্পর্ক ছিলো তার মা এর আগেও ইমরানকে পেট্রোলে জ্বালিয়ে হত্যার হুমকি দেন। আর ইমরানের বাবা খলিলুর রহমান জানান, হত্যাকাণ্ডের পরও পুলিশ মামলা নিচ্ছে না। মামলা না নেয়ার কারণ সম্পর্কে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয় হত্যার বিষয়ে তদন্ত চলছে। ইমরানের বাবা পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

তবে পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলেই বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া যাবে। বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবির হোসেন মোহাম্মদ বলেন, ‘ইমরানের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ ময়নাতদন্তের যে রিপোর্ট আসবে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান পুলিশ কর্মকর্তা।

এদিকে, হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ীদের বিচারের দাবি ইমরানের সহপাঠী ও শিক্ষকদের।

আরো পড়ুন