ওসি মোয়াজ্জেমের রায়ে সন্তোষ নুসরাতের পরিবারের

5

জাবেদ হোসাইন মামুন।।

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির জবানবন্দি ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার মামলায় সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে আট বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি ১৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ছয় মাস কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। ওসির বিরুদ্ধে এ রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার সাবেক ছাত্রী ও নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার নুসরাত জাহান রাফির মা শিরিন আখতার।

তিনি তার প্রতিক্রিয়ায় বাড়িতে সাংবাদিকদের বলেন, আদালাত বিচার বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করে রায় দিয়েছেন, আমি আদালতে ওসির বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছিলাম। আদালতের এই রায়ে আমি অত্যন্ত খুশি। এই রায় এবং আগে নুসরাতের খুনিদের ফাঁসির আদেশের মাধ্যমে প্রমাণ হলো বাংলাদেশে ন্যায় বিচার আছে। এই মামলার বাদি ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমনকেও তিনি ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন তিনি নুসরাতের পরিবারকে ঋনি করে দিলেন। ব্যারিস্টার সুমনও এই মামলার পর থেকে তাদের পরিবারের সবসময় খোঁজ খবর নেন। তাকেও তিনি তার পরিবারের সদস্য মনে করেন। এই রায়ের জন্যও তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিচারক ও সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

নুসরাতের মা আরো বলেন, এ রায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে, আর কোনো পুলিশ কর্মকর্তা কোনো মেয়ের সঙ্গে এমন আচরণ করার সাহস পাবেন না। কোনো হত্যাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার সাহস আর কোনো পুলিশ কর্মকর্তা পাবেন না। এ রায়ের মাধ্যমে নুসরাতের বিদেহী আত্মাও শান্তি পাবে বলেও জানান নুসরাতের মা। সেদিন ওসি মোয়াজ্জেম ভিডিও ধারণের সময় তাকেও তার কক্ষে ঢুকতে দেননি।

মা হয়েও তিনি তার মেয়ের পাশে থাকতে পারেননি। তার দুই বান্ধবীকেও ওসির কক্ষে ঢুকতে দেননি। তিনি বলেছিলেন ওই ধারণকৃত ভিডিও তার কাছে রাখবেন। তিনি তা না করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি আমানত খেয়ানত করেছেন। আমরা চাই এই রায় যেন উচ্চদালতেও বলবৎ থাকে। নুসরাতের বড় ভাই, নুসরাত হত্যা মামলার বাদি মাহমুদুল হাসান নোমান বলেন, এ রায়ের মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এটি প্রমাণ করে অপরাধী যেই হোক তাকে ছাড় দেওয়া হয়নি। নুসরাতের ভাই নোমান এমন রায়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিচার বিভাগের সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান।

নুসরাতের ছোট ভাই রাশেদুল হাসান রায়হান মুঠোফোনে জানান, রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। এ রায়ের ফলে নুসরাতের আত্মা কিছুটা হলেও শান্তি পাবে। সে আরো জানায়, রায় ঘোষণার সময় সে আদালতকক্ষে উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে ওসি মোয়াজ্জেমের এ রায়ে শুধু নুসরাতের পরিবার নয় সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও বলেছেন এ রায় ওসির জন্য সঠিক বিচার হয়েছে। নুসরাতের ভিডিও ধারণের নামে তাকে তিনি যে অপমান  করেছেন তার জন্য সঠিক বিচার হয়েছে। ভবিষ্যতে আর কোন ওসি যেন কোন নারীর সাথে এমন আচরণ না করেন।

আরো পড়ুন