একদিনের ব্যবধানে হিলি স্থলবন্দরে পেয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ৪/৫টাকা

হিলি প্রতিনিধি।।

১১০

আমদানি বাড়ায় মাত্র একদিনের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে পাইকাড়িতে পেয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ৪/৫টাকা। একদিন আগেও বন্দরে প্রতি কেজি নতুন ইন্দোর জাতের ছোট আকারের পেয়াজ ৩১/৩২টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে তা কমে ২৭টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে পেয়াজের দাম কিছুটা কমায় খুশি বন্দরে পেয়াজ কিনতে আসা পাইকাড়সহ নিন্ম আয়ের মানুষজন দাম আরো কমার দাবী তাদের।

হিলি স্থলবন্দরের পেয়াজ ব্যবসায়ী সবুজ হোসেন বলেন,দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দেশীয় নতুন পেয়াজ উঠার ফলে বাজারে দেশীয় পেয়াজের সরবরাহ বেড়েছে সেই সাথে দাম কম থাকায় দেশের বাজারে ভারতীয় পেয়াজের চাহীদা আগের তুলনায় কমে যায়।অপরদিকে মৌসুম শেষ হওয়ার কারনে ভারতীয় পুরাতন পেয়াজের মান খারাপ হওয়ায় ও আমদানিকৃত পেয়াজে গাছ গজিয়ে যাচ্ছিল।এমন অবস্থায় ভারত থেকে পেয়াজ আমদানি করে লোকশান গুনতে হচ্ছিল বন্দরের আমদানিকারকদের। যার কারনে লোকশান থেকে বাচতে বন্দর দিয়ে পেয়াজ আমদানি কিছুটা কমিয়ে দিয়েছিলেন বন্দরের আমদানিকারকরা।

এতে করে গতবৃহস্পতিবার বন্দর দিয়ে মাত্র ৩ট্রাক পেয়াজ আমদানি হয়েছিল যাতে করে দাম বাড়তির দিকে ছিল। তবে আবারো দেশের বাজারে দেশীয় পেয়াজের দাম আগের চেয়ে কিছুটা বাড়ার কারনে ভারতীয় পেয়াজের চাহীদা বাড়ায় আবারো পেয়াজের আমদানি বাড়িয়েছেন বন্দরের আমদানিকারকরা। এতে করে আবারো দেশের বাজারে চাহীদার তুলনায় পণ্যটির সরবরাহ বাড়ার কারনে এবং ভারতের বাজারেও দাম কিছুটা কমার কারনে দেশের বাজারে পেয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বলেন, গত বৃহস্পতিবার যেখানে বন্দর দিয়ে ৩ট্রাক পেয়াজ আমদানি হয়েছিল। সেখানে চলতি সপ্তাহের প্রথম দিন শনিবার বন্দর দিয়ে আমদানির পরিমান বেড়ে ১৯ট্রাকে ৫২৯টন পেয়াজ আমদানি হয়েছে। আজো বন্দর দিয়ে পেয়াজের আমদানি অব্যাহত রয়েছে।

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!