কুমিল্লায় টিসিবির দোকানে উপচে পড়া ভীড়

মাহফুজ নান্টু, কুমিল্লা:

27
করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে কুমিল্লা জেলায় জনসমাগম নিষেধ। থমকে আছে জনজীবন। তবে দূভোর্গে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষজন। নগরীজুড়ে টিসিবি কর্তৃক যেসব দোকান পরিচালিত হচ্ছে তা পর্যাপ্ত নয়। আর এ কারনেই টিসিবির দোকানগুলোতে উপচেপড়া ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এতে করে করোনা সংক্রমনের ঝুকি বাড়ছে।
জানা যায়, কুমিল্লা নগরীতে গড়ে ১০/১২ এলাকায় প্রতিদিন টিসিবির ট্রাক নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য নিয়ে হাজির হয়। তবে পুরো নগরীর জন্য তা পর্যাপ্ত নয় বলে জানান ক্রেতারা।
আজ বেলা ১১ টায় কুমিল্লায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনে টিসিবি কর্তৃক ট্রাকে করে পন্য বিক্রি করতে দেখা যায়। এ সময় পন্য কিনতে আসা সাধারণ মানুষজনের দীর্ঘ লাইন ছিলো লক্ষণীয়। জনপ্রতি ৫ লিটার তেল,ডাল ১ কেজী,পেয়াজ ১ কেজী, চাল ৫ কেজী বিক্রি করা হয়। তবে চাহিদা বেশী থাকায় প্রতিদিন উপস্থিত ক্রেতাদেরকে চাহিদা অনুযায়ী পন্য সামগ্রী সরবরাহ করা যাচ্ছে না।
রাজগঞ্জ দুধ বাজারের সামনে টিসিবি কর্তৃক নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য বিক্রি করছিলো। বেলা ১১ টায় লাইনে দাড়িয়ে বেলা সাড়ে বারোটায় ৫ লিটার তেল, ১ কেজী ডাল, ১ কেজী পেয়াজ কিনে আনন্দিত রিক্সা চালক কনু মিয়া। তবে মুখে বিরক্ত প্রকাশ করে কনু মিয়া জানান, যদি আরো দোকানের ব্যবস্থা করা যেত তাহলে আমাদের মত যারা আছে তারা উপকার পেতো।
এদিকে টিসিবির ডিলারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, শুক্র ও শনিবার বিক্রি বন্ধ থাকে। এতে সমস্যা আরো প্রকট হয়।
টিসিবির ট্রাক ডিলার মো:আব্বাস জানান,তেল, চাল, চিনির, পেয়াজ চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ ঠিক আছে। তবে জন প্রতি ডালের পরিমানটা আরো বাড়ানো গেলে ভালো হতো।
এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো:আবুল ফজল মীর বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় কর্তৃক আমাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। টিসিবির দোকান কম হলে পর্যবেক্ষনপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে। দূর্যোগকালীন সাধারণ মানুষের সেবা প্রদানে সরকার বদ্ধ পরিকর।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!