কুমিল্লায় পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি

হালিম সৈকত,কুমিল্লা

110
কুমিল্লার তিতাসে আইনের লোক পরিচয় দিয়ে পিস্তল ঠেকিয়ে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ১৩ জানুয়ারি ২০২০ইং রাত ৪টার সময় মাছিমপুর-কদমতলী ব্রিজের পাশে মৃত রায়েত আলী বেপারির বাড়িতে।
এ সময় একটি সংঘদ্ধ ডাকাতচক্র মাথায় পিস্তল ও রাম দা উচিয়ে তিনটি ঘরে তিনটি দলে ভাগ হয়ে ঘরে থাকা সর্বস্ব লুটে নেয়। ডাকাত দলে প্রায় ১৫ থেকে ২০ জনের একটি টিম ডাকাতি করে। পিকআপ ভ্যানে করে ৩টি গরু নিয়ে যায়। রায়েত আলীর ছেলে ওয়াসেক, ফিরোজ ও খলিলের ঘরে ৫-৬ জনের ৩টি দলে বিভক্ত হয়ে এক সাথে ডাকাতি করে।
ঘরে ঢুকেই ওয়াসেক, ফিরোজ ও ফিরোজের ছেলেকে বেঁধে ফেলে। ওয়াসেক মিয়ার স্ত্রী জামেনা বেগম বলেন, লাথি মেরে দরজা ভেঙ্গে ফেলে বলে আমরা আইনের লোক। চিৎকার করলে মেরে ফেলব। আলমারীর চাবি দে, কানের জিনিস খুলে দে। এ সময় আমার প্রতিবন্ধী মেয়ে ভয়ে চিৎকার দিয়ে ওঠলে তাকেও লাঠি দিয়ে আঘাত করে। এ সময় তারা ৩টি গরু যার মূল্য প্রায় ২ লক্ষ টাকা, নগদ দেড় হাজার টাকা এবং রুপার নুপুরসহ দামী মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ফজরের আযান দিলে তারা চলে যায়। ভয়ে এখন আমাদের ঘরে থাকা দায়। সবাই ভয়ে ভয়ে থাকি। কখন কি হয়? রাতে ঘুমাতে পারছি না।
বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন, তিতাস থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মধুসুদন সরকার। তিনি বলেন, বিষয়টি আমাদের জানা নেই। এখন যেহেতু আপনার কাছ থেকে জানলাম আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। সকালে জানতে পারলে আমি নিজেই যেতাম ঘটনাস্থলে। এর আগেও কিছু দিন পূর্বে উলুকান্দি গ্রামে ধারাবাহিকভাবে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এখন জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তাহলে আইন-শৃংখলা বাহিনী কি করছে? আর এখন আইন- শৃংখলা বাহিনীর নাম ভাঙ্গিয়েই ডাকাতি করছে! বিষয়টি সচেতন মহলকে ভাবিয়ে তুলেছে।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!