কুমিল্লায় হাটে ক্রেতা আছে পশু নেই

মাহফুজ নান্টু।।

420

বুধবারে হাটে পর্যাপ্ত পশু ছিলো। দাম ছিলো সবার নাগালে। পশু বিক্রিও হয়েছে বেশ। দাম কম পেয়ে হতাশায় ছিলেন পশু ব্যবসায়ী ও গৃহস্থরা। তবে মাত্র একদিনের ব্যবধানে পশুর দাম বেড়ে গেছে। পাশাপাশি কুমিল্লার হাটে পশুর সংকট দেখা দিয়েছে। পশু না পেয়ে খালি হাতেই ফিরতে হয়েছে অনেককে। আজ বৃহস্পতিবারও বাজারে একই অবস্থা। হাটে ক্রেতা আছে পশু নেই।

কুমিল্লা ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার সাহেবাবাদ, বুড়িচংয়ের শংকুচাইল, ফকিরবাজার, ছয়গ্রাম, ভরাসার, ষোলনল বাবুর বাজার, আদর্শ সদর উপজেলার বানাশুয়া, চাঁনপুর, নেউরা, বিবির বাজার, চকবাজা ঘুরে দেখা যায় হাটে ক্রেতা আছে পশু নেই। জেলার অন্যান্য উপজেলাগুলোতেও্র একই অবস্থা।

নগর কুমিল্লা ঝাউতলার বাসিন্দা আবদুল হামিদ জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলের পরে হাটে পশু বিকিকিনি শেষ হয়ে যায়। আজ শুক্রবার হাটে পশু নেই।
একই অবস্থা তামজীদ হোসেনের। ব্যাংকার তামজীদ হোসেন জানান, গরু কিনতে বের হয়েছেন। সকাল ১০ টা থেকে দুপুর পর্যন্ত চারটি বাজার ঘুরেছেন। কোন হাটেই মনের মত পশু পান নি। যে কয়েকটা গরু দেখেছেন তার দাম দ্বিগুনের বেশী চাওয়া হয়েছিলো। পরে সেগুলোও বিক্রি হয়ে যায়।

বগুড়ার গরু ব্যবসায়ী কফিল জানান, তিনি গত ১৮ বছর যাবৎ তিনি আদর্শ সদর উপজেলার চাঁনপুর গাউছিয়া হাটে পশু বেঁচাকেনা করেন। কফিল জানান, তিনি এ বছর ১৮ টি গরু এনেছেন হাটে। গত বুধবার কেনা দামে ৮ টি গরু বিক্রি করেছেন। তেমন কোন লাভ হয় নি। তবে বৃহস্পতিবার বিকেলেই বাকি ১০ গরু বিক্রি হয়ে যায়। গড়ে প্রতিটি গরু ১৫ হাজার টাকা মুনাফা হয়েছে বলে হাসির ঝিলিক দেখা গেলো কফিল উদ্দিনের মুখে। হাটে পশুর অভাবে ক্রেতারা ছুটছেন বিভিন্ন হাটে।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!