কুমিল্লা আইএইচটি এন্ড ম্যাটস এর প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পূনর্মিলনী

কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধি।।

৩৮২

উৎসাহ উদ্দীপনা আর নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে কুমিল্লা ইন্সটিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আইএইচটি) এন্ড মেডিকেল এসিস্টেন্ট ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) এর একযুগ পূর্তি উপলক্ষ্যে পূনর্মিলনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রিঃ) সকালে কুমিল্লা স্টেশন ক্লাবে কুমিল্লা আইএইচটি এন্ড ম্যাটস এর অধ্যক্ষ আলহাজ্ব ডাঃ এ কে এম আব্দুস সেলিম এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানের উপাধ্যক্ষ ডাঃ মোঃ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ,প্রতিষ্ঠানের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ সৈয়দ আশরাফ হোসেন, সহকারি অধ্যাপক পিযুষ কান্তি সরকার, প্রভাষক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, চিকিৎসা প্রযুক্তিবিদ ও শিক্ষক মোঃ আবদুল আউয়াল সরকার, প্রকৌশলী কায়েস মোঃ আল ফাতেহীন, হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মোহাইমিন রাফি, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ তাজুল ইসলাম, আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া, অফিস সহকারি রিপন, রফিক, তপন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের প্রথমে অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন। পরে অতিথিগণ একে একে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদান করেন। সকলকে দেশপ্রেমিক হতে হবে। সকলকে দূর্নীতিমুক্ত, অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ধুদ্ব হয়ে সোনার বাংলাদেশ গড়তে হবে। এ জাতীকে দূর্নীতিমুক্ত করতে হলে নতুন প্রজন্মকে কাজে লাগাতে হবে। নিজেকে সৎ ও যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

‘এসো মিলি প্রাণের বন্ধনে’- এ অনুপ্রেরণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মিলিত হয় শিক্ষার্থীরা। প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে অনুষ্ঠান । এ যেন এক মহা মিলনমেলায় পরিণত হয়। প্রাক্তন সহপাঠী বন্ধু-বান্ধবদের এ মিলনমেলার মাধ্যমে দেখতে পেয়ে উপস্থিত সবাই আবেগাপ্লুত হয়ে কোশল বিনিময়ে ব্যাস্ত সময় কাটান। তারপর ক্লাসমেট ও ইয়ারমেটদের নিয়ে একে একে সবাই ফটো সেশনে অংশগ্রহণ করেন। সাড়ে তিন শতাধিক প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রীদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠান শুরু হয় বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে।এবং গুণীজনদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা আরো বলেন, দেশের বৃহত্তর প্রান্তিক জনগোষ্ঠির স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে ১৯৭৬ সালে সরকার ম্যাটস প্রতিষ্ঠা করে। এরপর বেসরকারী উদ্যোগে এই ধরণের প্রতিষ্ঠানের ব্যাপকভাবে সম্প্রসারিত হয়।কুমিল্লা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি এন্ড ম্যাট্স এতদাঞ্চলে অন্যতম। এই প্রতিষ্ঠান হতে হাতে কলমে পড়া লেখা শেষ করে গ্রাম,ইউনিয়নও উপজেলা পযার্য়ে নিযুক্ত হয়ে মেডিকেল এ্যাসিসটেন্টগন চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছে।

প্রত্যেকটি রোগ নিরুপনী কেন্দ্র এবং হাসপাতাল সমূহে চিকিৎসা প্রযুক্তিবিদদের ভূমিকা অনন্য। তারা প্রত্যাঞ্চলে কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিকে চিকিৎসকদের পাশপাশি মেডিকেল এ্যাসিসটেন্ট হিসেবে সফলতার সাথে স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে আসছে। স্বাস্থ্য সেবা মানুষের একটি মৌলিক অধিকার। এই মৌলিক অধিকার বাস্তবায়নে সবাইকে নিরলস ভাবে কাজ করতে হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভিশনের কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রত্যেক মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য এসব ইনস্টিটিউট এর ভূমিকা অনন্য। দেশ,জাতির সেবার মধ্যদিয়ে জীবিকা নিবারণের উত্তম শিক্ষা মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স। এ কোর্স সম্পন্ন করে তারা নিজেরাই স্বাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি দেশের স্বাস্থ্য খাতকে সমৃদ্ধ করছে বলে উল্লেখ করেন।আনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সবার পরিচিত প্রতিষ্ঠানের ইংরেজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আলী আহসান টিটু।

আয়েশা আক্তার/অননিউজ24

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!