কুমিল্লা ইপিজেডের কেন্দ্রীয় তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার পরিদর্শন করেন এমপি বাহার

কুমিল্লা প্রতিনিধি।।

23

কুমিল্লা ইপিজেড কেন্দ্রীয় তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার পরিদর্শন ও কর্তৃপক্ষের সাথে মতবিনিময় করেন কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা হাজী আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার।

পরিদর্শন শেষে আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ইপিজেডের বর্জ্য ও দূষিত পানির যে সমস্যা আছে তা খুব শীঘ্রই সমাধান করা হবে। ইপিজেডের পাশে যে খালটি রয়েছে তা সংস্কার করা হবে। এছাড়াও ইপিজেড ও সিটি কর্পোরেশেনের যে বর্জ্য ও দূষিত পানি রয়েছে তা সমাধানের জন্য প্রকল্প করা হবে। জাইকার কাছে প্রস্তাব দেয়া হবে। যদি তারা প্রকল্পটি গ্রহণ না করে সেক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশনের বিশেষ প্রজেক্ট হিসেবে কাজটি সমাধান করতে অনুরোধ করেছি।

সিগমা ইকোটেক এর টেকনোলজি পার্টনার স্টালওয়ার্ট এর ম্যানেজিং ডিরেকটর তামজিদ রহমান বলেন, ইপিজেডের যে সব বর্জ্য দূষিত পানি আছে সেগুলো যদি পরিশোধন না হয়ে বের হয়ে তাহলে কৃষি জমি, কৃষক ও পরিবেশের মারাত্বক ক্ষতি হতো। এক্ষেত্রে আমরা ইপিজেডের যত রকম বর্জ্য পানি রয়েছে সবগুলো সংগ্রহ করছি। বর্জ্য ও দূষিত পানিগুলোকে পরিশোধন করে ব্যবহার উপযোগী করছে। এতে শুধু পানি শোধনই হচ্ছে না পাশাপাশি পানি থেকে যে সব ময়লা আলাদা করছি সেসব ময়লা শুকিয়ে জৈব সার তৈরি করছি। এ কাজে আমরা বিশে^র সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করছি।

ইপিজেডের জিএম মোঃ জিল্লুর রহমান ইপিজেডের বর্জ্য পানি শোধন বিষয়ে জানান, ইপিজেডের বর্জ্য ও দূষিত পানি সাধারণ মানুষের জন্য যেন ক্ষতির কারণ না হয় বিষয়টি নিয়ে কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার ইপিজেডের প্লান্ট পরিদর্শন করেন। এক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশন আমাদের সহযোগিতা করবে। আশাকরি অদূর ভবিষ্যতে আর কোন সমস্যা হবে না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ মনিরুল হক সাক্কু, সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রী শুভাশিষ ঘোষ, কুমিল্লা ইপিজেড এর জিএম মোঃ জিল্লুর রহমান সহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!