কুষ্টিয়া জেলা কারাগারের ৭৭ বন্দীর মুক্তি

109

জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল কুষ্টিয়া প্রতিনিধি।। কোভিড-১৯ করোনা পরিস্থিতিতে সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় বন্দিদের সংখ্যাধিক্য কমাতে লঘু অপরাধে দন্ডিত অনাধিক এক বছর সাজাপ্রাপ্ত বন্দিদের মুক্তি প্রদানে সদাশয় সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কুষ্টিয়া জেলা কারাগার থেকে ৭৭ জন বন্দির সাজা মওকুফ করা হয়। ইতোমধ্যে ৪৯ জন বন্দিকে মুক্তি প্রদান করা হলেও জরিমানা অনাদায়ে অসহায় ও নিঃস্ব ২৮ জন বন্দির মুক্তি পাওয়া আটক থাকে। মানবিক কারনে মানুষ মানুষের জন্য মহানুভব কুষ্টিয়া জেল সুপারের নির্দেশে কারা কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায় এবং জি.আই.জেড-এর সহায়তায় জরিমানার টাকা পরিশোধ করায় তাদের মুক্তি দেয়া হয়েছে।

তিন দফায় মোট ৭৭ জন বন্দী মুক্তি পেয়েছেন। মুক্তি পাওয়ার প্রক্রিয়ায় আছেন আরো বেশ কিছু বন্দি। করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারন করায় সরকার কারাগারগুলোর হাজতি ও কয়েদিদের সুস্থতার স্বার্থে বেশ কিছু বন্দিকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও ঈদ উপলক্ষেও কিছু বন্দিকে মুক্তি দেওয়া হয়। এবারের করোনা পরিস্থিতিতে তিন ক্যাটাগরির বন্দিরা মুক্তি পাবেন বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়। ক্যাটাগরি তিনটি হলো, শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তি, স্বল্পমেয়াদের সাজাপ্রাপ্ত এবং দীর্ঘমেয়াদের সাজাপ্রাপ্ত যারা ইতিমধ্যে ২০ বছর কারাভোগ করেছেন। কুষ্টিয়া জেলা কারাগার থেকে ইতোপূর্বে দফায় দফায় মোট ৪৯ জনকে মুক্তি দেয়া হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলা কারাগারের জেল সুপার জাকের হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের প্রকোপের কারনে কুষ্টিয়া জেলা কারাগারের সংখ্যাধিক্য বন্দি কমাতে সরকার ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ (১) ধারার প্রদত্ত ক্ষমতা বলে লঘুদন্ডে দন্ডিত তৃতীয় ধাপে ৭৭ জন বন্দির সাজা মওকুফ করেন। তিনি রবিবারের ২৮ বন্দির রায় ঘোষনার সময় প্রত্যেকের ৫শত টাকা থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা করা হয়েছিল। তারা সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় থাকলেও জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় মুক্তি পাচ্ছিল না। বন্দিরা গরীব ও অসহায় হওয়ার কারনে রবিবার কুষ্টিয়া কারা কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায় এবং জি.আই.জেড-এর সহায়তায় বন্দিদের জরিমানার বেশ কিছু টাকা পরিশোধ করে তাদের মুক্তি দেয়া হল। মুক্তির প্রাক্কালে নিঃস্ব অসহায় বন্দিদের কোন নিকট আত্মীয়-স্বজন না আসায় বন্দিদের আবেদনে কুষ্টিয়া কারা কর্তৃপক্ষ তাদের যাতায়াত ভাড়া প্রদান করেন। বন্দিরা জেল থেকে মুক্তি পেয়ে বাড়ি ফেরার পথে কোন আইনী কিংবা লোকাল কোন ঝামেলা না হয় সে জন্য জেল থেকে মুক্তি পেয়ে তারা বাড়ি ফিরছে এই প্রমান হিসেবে কারাকর্তৃপক্ষ বন্দিদের একটি সনদ প্রদান করেন। এছাড়াও কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনের নির্দেশে কুষ্টিয়ার ত্রাণ তহবিল থেকে মুক্তির প্রাক্কালে নিঃস্ব অসহায় প্রত্যেক বন্দিকে মানবিক সহায়তার খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়। জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে এন.ডি.সি. নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোসাব্বেরুল ইসলাম এ খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন।

এ সময় জেলার এনামুল কবির, ডেপুটি জেলার ইয়াসমীন জাহান জুঁইসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারিগণ উপস্থিত ছিলেন। বন্দিগণ অবশিষ্ট সাজা মওকুফ ও ত্রাণ পেয়ে খুব খুশি। মুক্তিপ্রাপ্ত এ সকল বন্দিরা প্রায় সবাই শ্রমজীবী এবং অসহায়। মুক্তির সময় এ মানবিক সহায়তা পেয়ে দুঃস্থ বন্দিরা আনন্দিত হয়ে জেলা প্রশাসক ও কারা কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!