জোরপূর্বক তিন পরিবারের বাড়িঘর ভাংচুরের অভিযোগ

কুমিল্লা প্রতিনিধি।।

65

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার দোতলা গ্রামে তিন অসহায় পরিবারের বাড়ী ঘর ভাংচুর ও লুট করে উচ্ছেদের অভিযোগ পাওয়া গেছে।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার দোতলা গ্রামের গ্রামপুলিশ রফিকুল ইসলাম, রমিজ উদ্দিন মোল্লা, রহিমা আক্তারের বসত ঘরে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে উচ্ছেদ করেছে স্থানীয় সেলিম মেম্বার, জহির মুন্সীর এর নেতৃত্বে একদল প্রভাবশালী।

ভোক্তভোগীরা অভিযোগ করেন প্রায় সত্তুর বছর পূর্বে চান্দিনা উপজেলার দোতলা গ্রামের দোতলা গোবিন্দপুর মৌজার ১৫৭ দাগের পূর্ব অংশের ৪০ শতাংশ জায়গা ক্রয় করে বসতি গড়ে তোলেন তারা। পরবর্তীতে ভূমি অধিগ্রহন অধিদপ্তর ৪০ শত হতে ২৯ শত জায়গা মহাসড়কের জন্য অধিগ্রহণ করে এবং ক্ষতিপূরন প্রদান করেন।

অপরান্তে ৪০ শতক ভূমি হইতে ১৮ শতক অধিগ্রহন করে যার ক্ষতিপূরণও ভোক্তভোগীরা পান। অধিগ্রহণের পরে অবশিষ্ট ৪০ শতাংশের মধ্যে ১৭ শতাংশ অবশিষ্ট থাকিলে বিএস রেকর্ডে নজরুল গংরা জাল জালিয়াতি করে ২৪ শতক রেকর্ড করে। পরববর্তীতে ভোক্তভোগীরা বিজ্ঞ দেওয়ানী আদালতে এলএসটি, বিএস সংশোধনী মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে চলমান রয়েছে।

এমতাবস্থায় বুধবার সকালে সেলিম মেম্বার, জহির মুন্সীর, সাত্তার মাওলানা, জহির মাওলানা, শ্যামল চন্দ্র সরকার, মামন, বাবুল গংদের নেতৃত্বে একদল দুবৃত্ত হামলা চালিয়ে ভোক্তভোগীদের বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুট চালায়। এ ঘটনায় প্রভাসী আব্দুল কাদের এর স্ত্রী খাজিদা আক্তার আহত হয়ে চান্দিনা উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়।

বর্তমানে সন্ত্রাসীদের ভয়ে ভোক্তভোগীরা আতঙ্কীত রয়েছে। ঘটনার সময় ৯৯৯ এ ফোন করলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও রহস্যজনক কারণে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। উক্ত ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।অভিযুক্তরা জানান, প্রভাবশালীরা স্থানীয় এমপির নাম ভাঙ্গীয়ে অবৈধভাবে এই উচ্ছেদ কার্যক্রম চালায় এবং বাড়ীতে বসবাসকারী মহিলাদের উপর নির্যাতন চালায়। বর্তমানে পরিবার ৩টি চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছে।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!