টানা বৃষ্টি ও ভারত থেকে আসা পানিতে হিলিতে বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি

52

হিলি প্রতিনিধি।। দিনাজপুরের হিলিতে টানা বৃষ্টিপাত ও ভারত থেকে আসা পানিতে স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন নিন্ম এলাকা পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন ওইসব এলাকার বাসিন্দারা।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৭টা থেকে টানা বৃষ্টিপাত শুরু হয়। রাত ১১টা পর্যন্ত টানা বৃষ্টিপাত হয়, এর পরেও থেমে থেমে বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। এতে করে হাকিমপুর সরকারি ডিগ্রী কলেজসহ ওই এলাকায় হাটুপানি জমে গেছে, একইভাবে চন্ডিপুরের কিছু এলাকা সড়কে পানি জমে যানবাহন চলাচল বিঘিœত হচ্ছে।

কলেজ এলাকার বাসিন্দা রানা মুন্সি ও চন্দনা বলেন, আমরা এই এলাকার বাসিন্দারা চরম বিপদের মধ্যে রয়েছি, ড্রেন না থাকার কারনে সামান্য একটু বৃষ্টি হলেই পানিতে বাড়ির আশেপাশে সবকিছু ডুবে যায়। গতকাল রাতে যে পানি হয়েছে তাতে করে একেবারে বন্যার মতো অবস্থা তৈরি হয়েছে। কলেজসহ আমাদের বাড়িঘরের এসব এলাকায় একহাটু করে পানি জমে গেছে। বাড়িতে যাওয়ার কোন উপায় নেই, বাড়ির সামনে পানি জমে পুকুরের মতো অবস্থা হয়ে গেছে। পানি ভেঙ্গে আমাদের বাড়ি থেকে বের হতে বা বাড়িতে যেতে হচ্ছে, ছোট বাচ্চাদের আরো সমস্যা বেশি, এতে করে খুব সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। পানিতে আমাদের কাপড় চোপড় সব নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমরা কাজের মানুষ কাজেও যেতে পারিনা, তাই আমরা এই জলাবদ্ধতার দুর্বিষহ যন্ত্রনা থেকে মুক্তি চাই।

হাকিমপুর (হিলি) পৌরসভার মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য বর্ষা মৌসুমের আগেই হিলির বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত ড্রেনগুলো পরিষ্কার করা হয়েছে। তবে ওই অঞ্চলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টির মুল কারন হলো ভারত থেকে আসা পানির কারনে। এবিষয়ে জনগনের ভোগান্তি নিরসনকল্পে প্রকল্প দেওয়া রয়েছে, প্রকল্প পাশ হলে কাজ শুরু হবে, তবে বর্তমান সময়ে ড্রেনগুলো পরিষ্কার করে যতটা জলাবদ্ধতা কমানো যায়। এছাড়াও হিলি স্থলবন্দরের চারমাথা থেকে শুরু করে যে ড্রেনটি নির্মান করা হয়েছে তার বাঁকি অংশ জালালপুর খাড়ি পর্যন্ত ড্রেনের বাঁকি অংশটুকু নির্মান না হচ্ছে ততোদিন পর্যন্ত এই দুর্ভোগ পোহাতে হবে।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!