ডাবের পানি কখন খাওয়া ঠিক নয়?

অনলাইন ডেস্ক।।

97

ডাব আমাদের শরীরের জন্য উপকারী, একথা সবারই জানা। শরীরে ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়ামের অভাব হলে এবং বিভিন্ন অসুখ-বিসুখ হলে ডাবের পানি পান করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। কারণ ডায়রিয়া বা কলেরা রোগীদের প্রচুর পানি ও খনিজ পদার্থের ঘাটতি দেখা দেয়৷ ডাবের পানি এই ঘাটতি অনেকটাই পূরণ করতে পারে। তবে যেকোনো খাবার খাওয়ার আগে নিজের শারীরিক অবস্থা বুঝে নেয়া জরুরি। ডাবের পানি খাওয়ার কিছু অপকারী দিকও থাকতে পারে। চলুন জেনে নেয়া যাক-

ক্যালরি বাড়ায়
আপনি যদি ওজন কমাতে চান তবে ডাবের পানি বেশি না খাওয়াই ভালো। কারণ এটি আপনার শরীরে ক্যালোরির মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। অন্যান্য স্বাস্থ্যকর পানীয় বা ফলের রসের তুলনায় ডাবের পানিতে চিনির পরিমান কম থাকে। তবুও ডাবের পানি খেলে নিমেষে বেড়ে যায় ক্যালরি।

রক্তে শর্করা মাত্রা বাড়ায়
ডাবের পানিতে চিনির পরিমান কম থাকলেও কার্বহাইড্রেট ও ক্যালরি অধিক মাত্রায় থাকার ফলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যায়। তাই ডাবের পানি প্রতিদিন খাওয়া উচিত নয়। ডায়বেটিস থাকলে ডাবের পানিএড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

রক্তাচাপ বাড়িয়ে দেয়
রক্তাচাপ বাড়িয়ে দেয় ডাবের পানি। ডাবের পানিতে প্রচুর সোডিয়াম থাকায় তা রক্তাচাপ বাড়িয়ে দেয়। তাই যাদের রক্তচাপ স্বাভাবিক ভাবেই বেশি তাদের ডাবের পানি প্রতিদিন খাওয়া উচিত নয়। ডাবের পানিতে থাকা অ্যামাইনো অ্যাসিড ও ডায়াটারি ফাইবার ইনসুলিনের কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

কিডনির রোগ
ডাবের পানি খেলে কিডনির সমস্যা হয় না। তবে কিডনি রোগ হলে ডাবের পানি পান করা একদমই ঠিক নয়। কারণ কিডনি অকার্যকর হলে শরীরের অতিরিক্ত পটাশিয়াম দেহ থেকে বের হয় না। ফলে ডাবের পানিতে পটাশিয়াম ও দেহের পটাশিয়াম একত্রে কিডনি ও হৃদপিণ্ড দুটোই অকার্যকর করে দেয়। তাই যাদের শরীরে প্রচুর পটাশিয়াম আছে এবং বের হয় না তাদের ডাবের পানি পান করা ঠিক না।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!