দেশের ক্রান্তিকালে সেনা বাহিনী জনগণের পাশে দাড়িয়েছে -মন্ত্রী তাজুল ইসলাম

এমদাদুল হক সোহাগ।।

159
বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) এর স্পেশাল মোটিভেশনাল ক্লাসে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো: তাজুল ইসলাম এমপি বলেছেন, দেশের সকল ক্রান্তিকালে সেনা বাহিনীর গর্বিত সদস্যরা জনগণের পাশে দাড়িয়েছেন।
যে কোন দুর্যোগে সেনাবাহিনী অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে সফলতা দেখিয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলছে। অল্প কিছু বছর আগেও আমাদের দেশের মানুষকে ভিক্ষুক ও মিসকিন বলে বাহিরের দেশের মানুষ গালি দিত, এখন আর দেয়না। কারন, বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, দেশজ উৎপাদন সহ সকল উন্নয়নমূলক সূচক  বৃদ্ধি পেয়েছে। ৎ
বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশ। বর্তমান সরকার রূপকল্প গ্রহণ করেছে। টেকসই উন্নয়নের জন্য শত বছরের পরিকল্পনা গ্রহণ করছে। অচিরেই বাংলাদেশ সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত দেশে পরিণত হবে। তখন দেশের প্রত্যেক নাগরিকের ব্যক্তিগত গাড়ি থাকবে। তিনি বলেন, একসময় আমি যখন গ্রামে গাড়ি নিয়ে আসতাম তখন রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ ছিলো। মানুষের তেমন কোন গাড়ি ছিলো না। এখন অনেক সুন্দর রাস্তা হয়েছে, গ্রামে যাওয়ার সময় অনেক গাড়ির সাথে ক্রস হয়। তার মানে দেশের মানুষের উন্নয়ন হয়েছে। তারা ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার শুরু করেছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা বর্তমানে নিরলসভাবে কাজ করছি দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য, যার সুফল পরবর্তী প্রজন্ম ভোগ করবে। সবাই যদি যার যার অবস্থান থেকে কাজ করে তাহলে খুবই অল্প সময়ে এ দেশ উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লার পুরাতন বিমানবন্দর এলাকায় বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) কুমিল্লা ময়নামতি রেজিমেন্টের আয়োজনে দশ দিনব্যাপী রেজিমেন্ট ক্যাম্পিং এর স্পেশাল মোটিভেশনাল ক্লাসে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নবম জাতীয় সংসদের সাবেক এমপি জোবেদা খাতুন পারুল। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাকে গড়ে তোলার জন্য কাজ করছে বর্তমান সরকার।
রেজিমেন্ট ক্যাম্পিংয়ে কুমিল্লা, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষীপুর, সিলেট, সুনামগঞ্জ, বাহ্মণবাড়িয়া, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় সহ মোট ১০০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর ১২৩ বিএনসিসি প্লাটুন হতে আগত বিএনসিসি অফিসার এবং ক্যাডেটসহ মোট ৫৫০জন অংশগ্রহণ করেন। রেজিমেন্ট ক্যাম্পিংয়ে ক্যাডেটদের ভবিষ্যত নেতৃতত্বের গুণাবলী বিকশিত করার লক্ষে সামরিক প্রশিক্ষণসহ মুক্তিযুদ্ধ, পরিবেশ সংরক্ষণ, প্রাথমিক চিকিৎসা, অগ্নিনির্বাপন, মাদকের কুফল ও প্রতিকার, ক্ষুদ্রাস্ত্র ফায়ারিং এবং বিভিন্ন অসামরিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি আত্নোন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ খেলাধূলা ও সাংস্কৃতিক চর্চার প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানে শুরুতে প্রধান অতিথিকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ ও স্পেশাল মোটিভেশনাল ক্লাসে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ময়নামতি রেজিমেন্টের রেজিমেন্ট কমান্ডার লে: কর্ণেল সালাহউদ্দিন আল মুরাদ, জি। এসময় বিএনসিসি অন্যান্য কর্মকর্তা ও অতিথিগণ উপস্থিত ছিলেন।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!