নদী তীরে অবৈধ দখল উচ্ছেদ নিয়ে ট্রাক শ্রমিকদের ধর্মঘটের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের আদেশ

মোঃ জহিরুল হক বাবু।।

170

নদীর অবৈধ দখল বন্ধ ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য ‘হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশ’ এর দায়ের করা জনস্বার্থের মামলায় নদীর সীমানা জরিপ ও দখলকারীদের উচ্ছেদসহ ৯দফা নির্দেশনা দিয়ে ২০০৯ সালে আদেশ প্রদান করে আদালত। আদালতের এ আদেশের বিরুদ্ধে একাধিক আপিলের পর দীর্ঘ শুনানি শেষে একই আদেশ বহাল থাকে।

আদেশ অনুযায়ী অবৈধ দখল উচ্ছেদ কার্যক্রম চলছে এবং এরই মধ্যে অনেক অবৈধ দখল উচ্ছেদ করা হয়েছে। কিন্তু তুরাগ নদীর তীরে নদীর জায়গা দখল করে বালি ও বর্জ্য ভরাট করে ট্রাক মালিকদের তৈরি করা অবৈধ ট্রাক স্ট্যান্ড ‘বিআইডব্লিউটিএ’ একাধিকবার উচ্ছেদ করলেও তা আবার দখল করা হয়। তাই পুনরায় ‘বিআইডব্লিউটিএ’ মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করে দখল উচ্ছেদের মাধ্যমে মালামাল নিলাম করে। এতে ট্রাক কাভার্ড ভ্যান শ্রমিকরা ক্ষুদ্ধ হয়ে সারাদেশে ধর্মঘট ডাকে।

শ্রমিকদের এ ধর্মঘটকে চ্যালেঞ্জ করে ‘হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশ’ এর দায়ের করা রীট পিটিশনের শুনানি শেষে আদালতের আদেশে ২-১৪ নং বিবাদিকে দেশব্যাপী ট্রাক ড্রাইভারদের ডাকা ধর্মঘটের সময় পরিবহন ও জনচলাচল স্বাভাবিক রাখতে নির্দেশনা দিয়ে ২ সপ্তাহের মাঝে Compliance report দাখিল করতে বলা হয়। একই সাথে আদালত নদীর তীরে জায়গা উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম অব্যাহত রাখার নির্দেশ দেন।‘হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশ’এর পক্ষে এ রীট পিটিশ দাখিল করেন এডভোকেট একলাছ উদ্দিন ভূইয়া ও এডভোকেট রিপন বাড়ৈ।

শুনানিতে এডভোকেট মনজিল মোরসেদ বলেন, আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নে ‘বিআইডব্লিউটিএ’ এর পদক্ষেপ সম্পূর্ন বৈধ। যার বিরুদ্ধে আইনি প্রতিকার না করে ট্রাক কাভার্ড ভ্যান শ্রমিকরা ধর্মঘট করে, যা আদালতের আদেশ বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে। এ ধরনের ধর্মঘট আইনের শাসনের পরিপন্থি।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!