পান খেতে চাওয়ায় ভিক্ষুককে রাস্তায় ফেলে পা দিয়ে পিশে মুখ থেঁতলে দিলো!

অনলাইন ডেস্ক।।

45
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ফরদিা বেগম (৫০) নামে মানসিক ভারসাম্যহীন এক বিধবা ভিক্ষুকের ওপর অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে।গতকাল বুধবার বিকেলে পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর এর পান দোকানী আব্দুর রহিম ওই বৃদ্ধাকে প্রকাশ্য রাস্তার ওপর ফেলে মুখমণ্ডল থেঁতলে দিয়েছে। গুরুতর আহত বৃদ্ধাকে পুলিশ ও স্থানীয়রা উদ্ধার করে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন।
নির্যাতিত বিধবা ভিক্ষুক উপজেলার টিকিকাটা ইউনিয়নের ছোট শিংগা গ্রামের হত দরিদ্র জবেদ আলীর মেয়ে।
হাসপাতাল সূত্রে জানাগেছে, মানসিক ভারসাম্যহীন বিধবা বৃদ্ধা ফরিদা বেগম গ্রাম থেকে উপজেলা সদরে আসেন ভিক্ষা করতে। বিকালে সে একটি পান খাওয়ার জন্য শহরের দক্ষিণ বন্দর পান সিগারেট এর দোকানী আবদুল রহিম এর দোকানে গিয়ে একটি পান খেতে চান। দোকানী আব্দুর রহিম ওই বৃদ্ধার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে দোকান থেকে বেরিয়ে এসে বৃদ্ধা টেনে হিঁচড়ে রাস্তার ওপর ফেলে পা দিয়ে পিশে মুখ মণ্ডল থেঁতলে দেন।
স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে এসে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে অভিযুক্ত রহিমকে আটক করে থানায় খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আহত বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ সময় পুলিশ অভিযুক্ত দোকানীকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানার উপ পরিদর্শক মানিক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অভিযুক্ত দোকানীকে আটক করা হয়েছে। বৃদ্ধাকে হাসপাতালে যথাযথ চিকিৎসাসেবা দেওয়া দেয়া ও অভিযুক্ত দোকানীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!