প্রথম আলোর সাংবাদিকের ওপর হামলার ১ আসামীর ২দিনের রিমান্ড, ২ আসামীও গ্রেপ্তার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।।

9

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন এলাকায় পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক শাহাদৎ হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার রোমান মিয়ার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকি-আল-ফারাবী দুই দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

এদিকে সোমবার দুপুরে কাজীপাড়া বাড়ি থেকে মামলার দ্বিতীয় আসামী জুম্মানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শাহাদাতের পক্ষের আইনজীবী মো. নাসির মিয়া ও তারেকুল ইসলাম মৃধা বলেন, রোমানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ।

আদালত তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। আইনজীবী এ কে এম ফেরদৌস ও আপেল মাহমুদ রোমানের পক্ষে জামিনের আবেদন করেন। আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করেছেন। আসামি রোমান মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাজীপাড়ার রউফ মিয়ার ছেলে।

তিনি ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত। পাশাপাশি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে অবৈধভাবে আম্বুলেন্সের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণকারী জুম্মান মিয়া (৩৬) ছোট ভাই রোমান (২৮)।

জুম্মান নিজেকে জেলা সৈনিক লীগের আহ্বায়ক হিসেবে পরিচয় দেন। হামলার ঘটনায় আহত সাংবাদিক শাহাদৎ হোসেন বাদী হয়ে গত ১ জুন রাতে রোমান মিয়া ও তাঁর বড় ভাই জুম্মান মিয়ার বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় মামলা করেন।

ওইদিন বিকেল ছয়টার দিকে ঢাকায় পালিয়ে যাওয়ার সময় পৌর শহরের বিরাসার এলাকা থেকে পুলিশ রোমানক আটক করে। পরে ওই মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে জেলা কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

ওইদিনই সাংবাদিকের কন্ঠরোধ ও পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় হামলার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রোমানের বিরুদ্ধে পাঁচদিনের রোমান্ডের আবেদন করে পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হেফাজতের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন চালুর দাবিতে গত ১জুন বেলা ১১টায় স্টেশন চত্বরে সচেতন ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর ব্যানারে মানববন্ধনের আয়োজন করেন জেলা ছাত্রলীগ ।

মানববন্ধনের সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য অন্যদের সঙ্গে শাহাদৎ হোসেনও স্টেশন এলাকায় যান। মানববন্ধন শেষের দিকে শাহাদৎ জানতে পারেন, ছাত্রলীগের এক কর্মী এক রেলস্টেশনের গেট কিপার মুরাদুল ইসলামকে মারধর করেছেন। শাহাদৎ বিষয়টি ঘটনাস্থলে উপস্থিত জেলা ছাত্রলীগের সাবেক জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সাবেক সহসভাপতি (ভিপি) যুবলীগ নেতা হাসান সারোয়ারকে জানান।

এতে ক্ষিপ্ত হন রোমান মিয়া। একপর্যায়ে হাসান সারোয়ারের সামনেই তিনি শাহাদৎ হোসেনের ওপর হামলা করেন। সে সময় হাসান সারোয়ার নির্বিকার দাঁড়িয়ে ছিলেন। এতে তাঁর নাক দিয়ে রক্ত বের হয়।

উপস্থিত সাংবাদিকেরা তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন জামি বলেন, ‘পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সাংবাদিক শাহাদৎ হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোজাম্মেল হোসেন ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম বলেন, মামলার আরেক আসামী জুম্মান মিয়াকে দুপুরে কাজীপাড়ার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!