মানুষ বাঁচলে পৃথিবী বাঁচবে, পৃথিবী বাঁচলে আমি বাঁচবো

মিঞা মিজানুর রহমান কাজল

89
উন্নত বিশ্বের অনেক দেশের নাগরিকরা এখন ঘরে বসে অফিস করছে। হয়ত মাস গেলে বেতনটাও ঠিক পেয়ে যাবে। এমনকি এই সময় চাকুরি চলে গেলে কিংবা হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকলে অনেক সরকারই তাদের নাগরিকদের বেতন দিয়ে দিবে ঘোষণা করেছেন।
এমতাবস্থায় অনিচ্ছাকৃত হলেও আমাদের মত গরীর দেশের প্রতিটি নাগরিককে ঘরে থাকতে হচ্ছে। হয়ত অনেকে মানছে আবার অনেকে মানছে না।
যতদূর জানি রাস্তাঘাট অনেকটা ফাঁকা। যারা খেটে খাওয়া মানুষ কিংবা যাদের দৈনন্দিন আয়ের উপর সংসার চলে, আপনি কি ভেবে দেখেছেন তাদের একদিন দুইদিন তিনদিন পরে কি হবে? কিভাবে তাদের সংসারে খাবার জুটবে?
হয়ত অভাবে অনেকে চুরি ডাকাতি ছিনতাই নেমে যেতে পারে। আমরা চাই না দেশ এমন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির স্বীকার হোক।আসুন এই ক্লান্তি লগ্নে যার যার স্থান থেকে আমরা সকলেই খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াই।
একজন মানুষের পাশে দাঁড়াতে লাখ লাখ টাকার প্রয়োজন হয় না। আপনার যতটুকু ক্ষমতা আছে ততটুকু দিয়েও একজনের পাশে দাঁড়াতে পারেন।আমরা রেষ্টুরেন্টে বসে এক বেলা খেয়ে হাজার টাকা বিল দিয়ে দিতে পারি, মোবাইল, ইন্টারনেটসহ দৈনন্দিন নানা রকমের বিল দেই। আজ না হয় ঠিক তেমন একটি বিলের টাকা চিন্তা করে অন্তত একটি পরিবারের এক সপ্তাহের বাজার করে দেই।
আমার ফেসবুক ফ্রেন্ড লিষ্টে হাজার হাজার মানুষ আছেন যারা সমাজে ভাল অবস্থানে আছেন। অন্তত খেয়ে পড়ে এখন পর্যন্ত আলহামদুলিল্লাহ অনেকেই ভাল আছেন। আসুন আজই যার যার স্থান থেকে অন্তত একটি পরিবারের পাশে দাঁড়াই।
আমি নিজে এই দূর দেশ থেকে আজ এই উদ্যোগ নিয়েছি এবং ইনশাআল্লাহ অনেক পরিবারের পাশে দাঁড়াবো। আশাকরি আপনিও আপনার সাধ্য অনুযায়ী অন্যের পাশে দাঁড়াবেন।দেশের এই ক্লান্তি লগ্নে একে অপরের প্রতি ভালবাসার হাত বাড়িয়ে দেই। আজ যেই গরীব মানুষটি ঘরে অবস্থান করবে জেনে রাখুন সে শুধু নিজের জন্যই না, আপনার জন্যও মঙ্গলের কাজ করছে।
শুধুই ফেসবুকে পোষ্ট কিংবা এমন উদ্যোগ গুলো পড়ার মধ্যেই যেন আমরা সীমাবদ্ধ না থাকি। আমাদের স্বদিচ্ছাটা জাগ্রত করতে হবে।সরকারের উপর নির্ভর না হয়ে আসুন আমরা যার যার স্থান থেকে এগিয়ে আসি।মহান সৃষ্টিকর্তা নিশ্চয়ই তার রহমত দিয়ে অতি দ্রুত আমাদের এই মসিবত থেকে রক্ষা করবেন।
আমিন।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!