রহনপুর পৌর নির্বাচন: বিএনপি’র মেয়র তারিক আহমদ পুনরায় ঘুরে দাড়াতে চান

শান্তনু হাসান খান, বিশেষ প্রতিনিধি।।

514

ডিসেম্বরে সারাদেশে প্রায় ২৩৪ টি পৌরসভায় ভোট করার জন্য কমিশন অনুমতি দিয়েছে। পৌরসভা ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি চলছে। বর্তমান পরিষদের মেয়র, নির্বাচন আয়োজনে কোনো জটিলতা আছে কি না এসব সার্বিক তথধ্য চেয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়কে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আর গতবারের মতো এবারের নির্বাচনে দলীয় প্রতীক ব্যবহার করা যাবে। মেয়র এইচ.এস.সি. পাশ হতে হবে ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের এস.এস.সি. পাশ হতে হবে।

এ বিষয়ে বিভিন্ন মিডিয়াতে খবর ছড়ালেও শিক্ষাগত যোগ্যতা বাধ্যতামূলক নয়। এ বিষয়ে সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, একটি গুজব ছড়ানো হয়েছে মাত্র। সরকারের এমন কোনো পরিকল্পনা নেই। আর সেই আলোকে এবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সদর, রহনপুর, শিবগঞ্জ আর নাচোল পৌরসভার নির্বাচনের তফসিল অক্টোবরের শেষ নাগাদ। ২০১৫ তে গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পৌরসভার বিএনপি সমর্থিত মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন তারিক আহমদ। আগামী নির্বাচনে বিএনপি ছাড়াও আওয়মী লীগের ৩জন প্রার্থী মাঠে থাকবেন। তবে বর্তমান মেয়রের দ্বারা এলাকার সার্বিক উন্নয়ন কর্মকান্ডে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তিনি বলেন, জনগনের চাহিদা পূরণে প্রত্যাশা শতভাগ না হলেও বাজেট অনুযায়ী কাজ করেছি। আগামীতে জনগন মেন্ডেট দিলে ইনশাল্লাহ ২য় বারের মতো সার্বিক উন্নয়নে কাজ করবো।

তারিক আহমদ গোমস্তাপুরের মানুষ। বেড়ে উঠেছেন এই জনপদে। পড়াশোনাটা এখানেই শুরু। এরপর চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ইন্টার পাশ করেন। ছাত্রজীবনে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের গড়া জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। সেই ১৯৮৩ থেকে ১৯৯৩ পর্যন্ত ব্যাপক আন্দোলন ও সংঘর্ষে লিপ্ত ছিলেন। ১৯৯৩ থেকে বিএনপি’র জাতীয় রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। আর তখন গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এমনিতেই গোমস্তাপুর বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা। তাকে রাজনীতি করতে গিয়ে তেমন কোনো বেগ পেতে হয়নি। তার নানা মরহুম আলহাজ্ব মহুর আলী আর তার মামা ধারাবাহিক ভাবে ৫০ বছর স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ছিলেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় সরকারের বরাদ্দ আর বাজেটের স্বল্পতার জন্য শতভাগ উন্নয়ন করা সম্ভব হয়না ইচ্ছা থকলেও। তার পরেও আমি সরকার দলীয় জনপ্রতিনিধি না হয়েও বর্তমান সরকারের সকল কর্মসূচি ও প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে কার্পন্য করিনি। এদিকে জলবায়ু, নগর উন্নয়, এলজইডি, জনস্বাস্থ প্রকল্পের আওতায় ড্রেনেজ সিস্টেম, রাস্তাঘাট উন্নয়ন আর পৌর ভবন নির্মানের কাজ সমাপ্তের পথে। তাছাড়াও দৈনন্দিন নাগরিক সেবা উল্লেখযোগ্য ভাবে প্রদান করেছি ও কর্মকর্তা কর্মচারীগনের বেতন বোনাস বৈশাখী ভাতা, চিত্ত বিনোদন ভাতা, গ্রেচুইটি প্রভিন্টেফান্ড এবং মেয়র কাউন্সিলরবৃন্দের সম্মানি দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে প্রতি মাসে নিয়োমিত প্রদান করেছি । ৫৩ বছরের তারিক আহমদ দীর্ঘদিন এলাকায় জাতীয়তাবাদী দলের হয়ে কাজ করছেন। ৯৭তে পৌর বিএনপি সাধারন সম্পাদক আর ২০১৮ থেকে গোমস্তাপুর উপজেলার সম্পাদক।

তিনি বলেন, বিগত দিনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আলহাজ্ব আমিনুল ইসলামের হয়ে নির্বাচন কমিটির আহবায়কের দ্বায়িত্ব পালন করেছি। সেই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে বিএনপি’র কেন্দ্র থেকে আমাকে নমিনেটেড করবেন বলে আমি আশাবাদী।

এছাড়াও রহনপুর পৌরসকভাকে বাসযোগ্য একটি নিরাপদ নগর গড়ে তুলতে সচেষ্ট হবো আগামীতে। পাশপাশি মাদক, সন্ত্রাস আর জঙ্গীবাদ এই তিনটি হচ্ছে উন্নয়নের প্রধান বাধা। মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান জিরো টলারেন্স। আগামীতে এ ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে জনগনের সহযোগিতা পাবো বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!