সংশয়ে টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর

56

অনলাইন ডেস্ক।। ধরেই নেয়া যায়, আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর টাইগারদের শ্রীলঙ্কা যাওয়ার যে শিডিউল ছিল, তা আর হচ্ছে না। সেই কলম্বো যাত্রা উপলক্ষ্যে আজ (শুক্রবার) ক্রিকেটার, কোচিং ও সাপোর্টিং স্টাফদের করোনা টেস্ট করানোর কথা ছিল, সেটাও হচ্ছে না।

এদিকে করোনা ইস্যুতে লঙ্কান সরকার, তাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সেনাবাহিনীর পরিচালনায় টাস্কফোর্স আরও নাকি কঠোর অবস্থানে। শ্রীলঙ্কায় কোনো ভিনদেশি নামার সাথে সাথে তাকে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে রাখা বাধ্যতামূলক। সেখানে বিসিবির ৭ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকার অনুরোধ ধোপে টিকবে কিনা, তা নিয়ে আছে বড় সংশয়।

সব মিলে মনে হচ্ছে করোনার কারণে ও কোয়ারেন্টাইন ঝামেলায় টাইগারদের শ্রীলঙ্কা যাওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। বিশ্বস্ত সূত্রের খবর, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) অভ্যন্তরেও শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজ খেলতে যাওয়া নিয়ে একটা নেতিবাচক চিন্তা ভাবনার উন্মেষ হয়েছে।

সফর না হলে কি হবে? কি করা হবে, কি করা যাবে? সে চিন্তাভাবনাও চলছে। জানা গেছে, ক্রিকেটারদের খেলার ভেতরে রাখতে তিন দলের একটি টুর্নামেন্ট আয়োজনের পরিকল্পনা আছে বিসিবির।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন গত ১৪ সেপ্টেম্বরই বলে দিয়েছেন, শ্রীলঙ্কা সফর বাতিল হলে ঘরোয়া ক্রিকেট চালুর উদ্যোগ নেয়া হবে এবং ক্রিকেটাররা যাতে মাঠে ফিরতে পারে, সেই ব্যবস্থাই করা হবে।

ঘরোয়া ক্রিকেট চালু মানে কি প্রিমিয়ার লিগ? নাজমুল হাসান পাপন আভাস ইঙ্গিতেই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন-না, প্রিমিয়ার লিগ নয়। তিনি বলেছিলেন, প্রিমিয়ার লিগের ১২ দলকে বোঝানো ও ম্যানেজ করা কঠিন হবে। তাই বিকল্প কিছুর চিন্তা মাথায় আনতে হবে।

কি সেই বিকল্প চিন্তা? বিসিবির উচ্চ পর্যায়ের অতি নির্ভরযোগ্য সূত্রের খবর, একটি তিন দলের টুর্নামেন্ট করার কথা ভাবা হচ্ছে এবং সেটি হবে জাতীয় দলের প্রাথমিক ক্যাম্পে ডাক পাওয়া ক্রিকেটার এবং এইচপির বহর থেকে ক্রিকেটারদের নিয়ে।

কিন্তু প্রিমিয়ার লিগ নয় কেন? ঐ ১২ ক্লাবের আসরে তো অনেক বেশি ক্রিকেটার অংশ নিতে পারবেন? অনেকের রুটি রুজিরও সংস্থান হতো। তাহলে প্রিমিয়ার লিগ বাদ দিয়ে তিন দলের টুর্নামেন্ট করার চিন্তা কেন?

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমান পরিস্থিতি ও প্রেক্ষাপটে ১২ ক্লাবকে নিয়ে প্রিমিয়ার লিগ আয়োজন করা সম্ভব নয়। কারণ প্রিমিয়ার লিগে ১২ দলে ক্রিকেটার, কোচ, কোচিং-সাপোর্টিং স্টাফ আর কর্মকর্তা মিলে গড়পড়তা ২০ জনের বহর। তার মানে প্রায় সোয়া দু‘শো থেকে আড়াইশো মানুষের অংশগ্রহণ। করোনার মধ্যে এত মানুষকে কি করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাখা হবে? সেটা অসম্ভব ব্যাপার।

তাই বিকল্প পথে হাঁটা। ভেতরের খবর, জাতীয় দল, ‘এ’ দল ও এইচপির বহর থেকে তিন দল করে বিকেএসপিতে একসঙ্গে রেখে একটি টুর্নামেন্ট আয়োজনের চিন্তাই চলছে।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাতে বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি চেয়ারম্যান আকরাম খান তেমন ইঙ্গিতই দিয়েছেন। আজ (শুক্রবার) সকালে জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুও জানালেন প্রায় একই কথা।

নান্নুর কথা, ‘করোনার ভেতরে সবকিছু ম্যানেজ করে ১২ দলকে নিয়ে খেলা সম্ভব না। তাই শ্রীলঙ্কা সফর না হলে আমরা তিন থেকে চার দলের অংশগ্রহণে একটা টুর্নামেন্ট করার কথা ভাবছি। বিকেএসপই সে টুর্নামেন্ট আয়োজনের সম্ভাব্য ভেন্যু। সেখানে তিন থেকে চার দলকে একসাথে রাখা যাবে।’

জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক যোগ করেন, ‘সেখানেই তো যুব দলের ৪৫-৪৬ জন ক্রিকেটার একসাথে থেকেছে, অনুশীলনের পর তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলে ফেললো। কাজেই বিকেএসপিতে আয়োজন করলে সব ক্রিকেটার ও কোচিং স্টাফ একই কমপ্লেক্সে থেকে খেলতেও পারবে।’

নান্নু জানালেন, তাদের মাথায় দুই ধরনের চিন্তা আছে। তার ভাষায়, ‘চার দলের অংশগ্রহণে বিসিএলও হতে পারে। আবার জাতীয় দলের প্রাথমিক ক্যাম্পে ডাক পাওয়া ২৭ জন, এইচপির বহর থেকে ক্রিকেটার নিয়ে তিন দল করে টুর্নামেন্ট আয়োজনের কথাও ভাবা হচ্ছে।’

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!