স্থলবন্দর দিয়ে আমদানিকৃত পেঁয়াজ লোকশানের ভয়ে নিজস্ব গুদামে নামাচ্ছেন

হিলি প্রতিনিধি।।

57

চাহীধার তুলনায় আমদানি বাড়ায় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে পেঁয়াজের ক্রেতা সংকট দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থায় দুদিনেও আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি না হওয়ায় লোকশানের ভয়ে বন্দর থেকে এসব পেঁয়াজ খালাস করে নিজস্ব গুদামে নামিয়ে নিচ্ছেন বন্দরের আমদানিকারকরা।হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম ও রাশেদ হোসেন বলেন, পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি আইপির মেয়াদ চলতি মাসেই শেষ হওয়ার কারনে বন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আমদানি বাড়িয়েছেন বন্দরের আমদানিকারকরা।

কিন্তু পেঁয়াজের আমদানি বাড়িয়েই বিপাকে পড়েছেন বন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারকরা। করোনার সংক্রামন রোধে দেশে লকডাউন চলছে এর ফলে দেশের বিভিন্ন স্থানে হোটেলগুলো বন্ধ রয়েছে এর উপর রমজানের শুরুতেই অনেকে বাড়তি পেঁয়াজ কিনে ফেলেছেন। এর কারনে দেশের বিভিন্ন মোকামগুলোতে যে পরিমান পেঁয়াজের চাহীদা ছিল সেটি কমে গেছে। যার কারনে বন্দর দিয়ে পেঁয়াজের আমদানি বাড়লেও পেঁয়াজের বিক্রি কমে গেছে। যার কারনে পেঁয়াজের দাম যেখানে ২৫/২৬ছিল সেটি কমে ২০/২২টাকায় নেমে আসে।

গত সোমবার বন্দর দিয়ে ১৪টি ৩৯১টন পেঁয়াজ আমদানি হলেও সেদিন মাত্র ৭ট্রাক পেঁয়াজ বিক্রি হয় অবশিষ্ট ৭ট্রাক পেঁয়াজ বন্দরের ভেতরে আটকা ছিল।এর উপর গতকাল মঙ্গলবার বন্দর দিয়ে ৯টি ট্রাকে ২২১টন পেঁয়াজ আমদানি হয়। বন্দরে অবশিষ্ট ১৬ ট্রাকের মধ্যে মাত্র ২ট্রাক পেঁয়াজ বিক্রি হয় কিন্তু অবশিষ্ট পেঁয়াজ বিক্রি না হওয়ায় অপরদিকে বাড়তি গরমের কারনে লোকশানের ভয়ে আমদানিকৃত এসব পেঁয়াজ খালাস করে আমদানিকারকরা তাদের নিজস্ব গুদামে নামিয়েছেন।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!