স্বাভাবিক ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক , অস্বাভাবিক ভাড়া ও দুর্ভোগে যাত্রীরা

দেলোয়ার হোসাইন আকাইদ, কুমিল্লা প্রতিনিধি।।

8

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। যানবাহন সংকট ও মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা। এদিকে ঈদ যাত্রায় নানা অপ্রতিকর ঘটনা প্রতিরোধে তৎপর রয়েছেন বলে জানান হাইওয়ে পুলিশ। গণপরিবহন না চললেও যাত্রীবাহী ছোট পরিবহন ও পন্যবাহী ট্রাক লরি কাভার্ডভ্যান চলাচলে কোন প্রতিবন্ধকতা নেই। গেল রাতে দাউদকান্দি মেঘনা-গোমতী টোলপ্লাজা এলাকায় যানজট থাকলেও সকালে তা স্বাভাবিক হয়ে যায়।

ঢাকা থেকে দীর্ঘ সময় জ্যামে পড়ে গেল রাতে চট্রগ্রাম গিয়েছেন ড্রাইভার জসিম, সকালে আসার পথে কোন জ্যামে পরেননি । মহাসড়ক ফাঁকা রয়েছে।ঢাকা চট্রগ্রামে মহাসড়কের আঞ্চলিক বাস সার্ভিস যমুনা বাসের ড্রাইভার সেলিম মিয়া জানান, মহাসড়ক এখন ফাঁকা আছে। আর সড়কে দুরপাল্লার বাস না থাকায় রাস্তা দখলে করে আছে ছোট ছোট যানবাহনগুলো।

এদিকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এবারের ঈদে গ্রামের বাড়িতে যেতে মানুষকে নিরুৎসাহিত করতে বন্ধ রাখা হয়েছে দূরপাল্লার পরিবহন। কিন্তু ঈদে ঘরমুখী মানুষের ঢল ঠেকানো যায়নি। রাস্তায় রাস্তায় ছিল সাধারণ মানুষের জটলা। দূরপাল্লার গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ভেঙে ভেঙে গন্তব্যে ছুটছেন তারা। প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল, কাভার্ড ভ্যান ভাড়া করে যে যার মতো ছুটছেন বাড়ির পথে।

যানবাহনের চাহিদা বেশি থাকায় ভাড়াও গুনতে হচ্ছে কয়েক গুণ বেশি। তিন চারগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে হলেও নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছেন ঈদে ঘরমুখো মানুষ। ঢাকা থেকে কুমিল্লার মিয়ারবাজারে আসা যাত্রী শরিফুল জানান, সামনে ঈদ তাছাড়া সন্তান অসুস্থ তাই যেভাবেই হোক তাকে আসতে হয়েছে। সড়কে যানবাহন ছাড়া চলাচল কিযে কষ্ট, কি সীমাহীন দূভোর্গে পড়েছেন তা আল্লাহ ছাড়া কেউ উপলদ্ধি করতে পারবে না।

ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ছোট চাকুরি করেন কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের কালিকাপুরের সালমা বেগম, ঈদে বাড়িতে আসতে হবে। প্রাইভেটকার বা মাইক্রোর যে ভাড়া চেয়েছেন তা তিনি বেতনও পাননা। তাই পুরুষদের ভিড়ে তাকে চড়তে হয়েছে ট্রাকে। তিনি বলেন পুরুষদের ভীড়ে ট্রাকে করে যাত্রা একজন মহিলার জন্য কেমন স্বস্থি তা বুঝতেই পারছেন।

ঢাকা থেকে আসা আরেকযাত্রী মিজান জানান, ২শ টাকা ভাড়া কেই চাচ্ছেন ১ হাজার টাকা, কেউ ১৫শ, যে যার মত করে ভাড়া দাবী করছে। এত টাকা যদি ভাড়াই দিতে হয় তাহলে বাড়িতে কি নিয়ে যাব। তাই বহু কষ্টে একটি ট্রাকে চড়লাম।কুমিল্লার পদুয়ার বাজার এলাকায় নোয়াখালী, লক্ষীপুর, চাঁদপুরগামী অপেক্ষমান যাত্রীদের ভিড় বাড়ছে বেলা বাড়ার সাথে সাথে। এছাড়া যানবাহন সংকট থাকায় ঢাকা ও চট্টগ্রামগামী অনেক যাত্রীরাও অপেক্ষা করছেন সড়কের পাশেই।

হাইওয়ে পুলিশ কুমিল্লা রিজয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মোহাম্মদ শাহিন জানান, মহাসড়কে দূরপাল্লার বাস না চললেও ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন চলছে। তবে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কোথাও যানবাহন আটকে নেই। মহাসড়কে ঈদ যাত্রায় নানা অপ্রতিকর ঘটনা প্রতিরোধে হাইওয়ে পুলিশ তৎপর রয়েছেন। মহাসড়কে বিভিন্ন পয়েন্টে তল্লাসী চৌকিসহ নিরাপত্তার জন্য বিভিন্নপদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!