হঠাৎ ৭০০ কোটি ডলার ক্ষতির মুখে জাকারবার্গ

55

অনলাইন ডেস্ক ।। জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের সিইও জাকারবার্গ হঠাৎ ৭০০ কোটি ডলারের ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। ফেসবুক থেকে বড় বড় কোম্পানি বিজ্ঞাপন সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণায় কোম্পানিটির শেয়ারের দরপতন হয়েছে। আর এতেই বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা।

ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার্স ইন্ডেক্সের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিশ্বের বৃহত্তম বিজ্ঞাপনদাতা সংস্থা ইউনিলিভার, কোকাকোলাসহ বড় বড় বেশ কয়েকটি কোম্পানি বিজ্ঞাপন বন্ধের খবর প্রকাশ্যে আনতেই শুক্রবার ফেসবুকের শেয়ার ৮.৩ শতাংশ পড়ে যায়।

ইউনিলিভারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, ফেসবুকে বিজ্ঞাপনের জন্য তারা চলতি বছরে আর কোনও অর্থ ব্যয় করবে না। এছাড়া আরও ৯০টির বেশি প্রতিষ্ঠান বর্ণবাদের কারণে ফেসবুক বয়কট করার ঘোষণায় শুক্রবার ফেসবুকের বাজার মূল্যে ধস নামে। এক ধাক্কায় কোম্পানিটির বাজারমূল্য কমে যায় ৫৬ বিলিয়ন ডলার। আর গত তিন মাসের মধ্যে ফেসবুক শেয়ারের এটাই সর্ববৃহৎ পতন।

প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতির ধাক্কা লেগেছে জাকারবার্গের ব্যক্তিগত সম্পদেও। এই মুহূর্তে তার সম্পদের পরিমাণ ৭২০ কোটি মার্কিন ডলার কমে গেছে। যার ফলে বিশ্বের শীর্ষ ধনীর তালিকা থেকেও এক ধাপ নেমে গেছেন তিনি। এ কারণে বর্তমানে বিশ্বের ধনীর তালিকায় শীর্ষ তিন থেকে সরে জাকারবার্গ এখন চারে। জেফ বেজোস ও বিল গেটসের পর তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছেন বার্নার্ড আরনল্ট।

জানা গেছে, ফেসবুকের পলিসির কারণে বিজ্ঞাপন বন্ধ বয়কটের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বড় কোম্পানিগুলো। তারা বলছে, ফেসবুক ঘৃণামূলক বার্তা এবং গুজব নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হয়েছে।

এ সম্পর্কে শুক্রবারই মার্ক জাকারবার্গ জানান যে, বিদ্বেষমূলক যে মন্তব্য করা হচ্ছে তা সরিয়ে ফেলা হবে। এছাড়া ঘৃণামূলক বার্তা নিয়েও ফেসবুক তার সংজ্ঞার বিস্তৃতি ঘটিয়েছে। কোন বিজ্ঞাপন যদি কারও জন্য বিপজ্জনক হিসেবে চিহ্নিত হয়, তাহলে তাদেরকেও বিজ্ঞাপনের অনুমতি দেওয়া হবে না।

আমেরিকায় জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের পর মানুষ সচেতন হয়ে উঠেছে। অনেকেই বর্ণবাদ ছড়ানোর দায় চাপাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি চাপে আছে ফেসবুক।

আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!