‘হাতধোয়া’ কর্মসূচি নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষ : আহত ২০

অনলাইন ডেস্ক।।

35
সিলেট নগরীর পশ্চিম কাজলশাহ এলাকায় করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘হাতধোয়া’ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় দুই দফা পাল্টাপাল্টি হামলায় দু’পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।
জানা গেছে, বুধবার বিকেলে ৯ নং ওয়ার্ডের এতিম স্কুল রোডের কিছু যুবক করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘হাতধোয়া’ কর্মসূচি ও জীবাণুনাশক স্প্রে করে আসা-যাওয়া মানুষের মাঝে। এসময় পশ্চিম কাজলশাহ এলাকার গিয়াস মিয়া নামের এক ব্যাক্তির হাতে স্প্রে দিতে গেলে তিনি তাদেরকে গালিগালাজ করেন। বিষয়টি নিয়ে পশ্চিম কাজলশাহ এলাকার বাসিন্দা ও এতিম স্কুল এলাকার বাসিন্দাদের মাঝে এক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
এর জের ধরে সন্ধ্যার পর ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। এসময় এতিম স্কুল রোডের জুমন, শরীফ, হিমেল, নাহিদের নেতৃত্বে বেশ কিছু যুবক দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে গিয়াস মিয়ার বাসায় হামলা চালায়। ভাংচুর করে কয়েকটি দোকানপাট। একপর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হলে অন্তত ২০ জন আহত হন।
আহতরা হলেন- রাসেল আহমদ, সাকিব আহমদ, গৌছ মিয়া, মামুন, মান্না, শাকিল, সাইফুল ইসলাম, শাহনুর মিয়া, গিয়াস মিয়া, রুহেল, ইমন, জসিম প্রমুখ।
পরে কোতোয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) সৌমেন মিত্রসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিয়া।
এদিকে সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মখলিসুর রমমান কামরান ও ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ লায়েক। তারা দু’পক্ষকে নিয়ে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।
আরো পড়ুনঃ
error: Content is protected !!