১২ সেপ্টেম্বর খুলছে স্কুল-কলেজ -শিক্ষামন্ত্রী

১৩৭

সারাদেশের প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের পাঠদান শুরু করা যাবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) চাঁদপুর সদর উপজেলার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি।করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত বছরের মার্চ থেকে দেশের সবধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিপাঠদান বন্ধ রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি দফায় দফায় বাড়িয়ে তা সবশেষ ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। এরপর আর তা বাড়ানোর কোনও পরিকল্পনা নেই সরকারের, এরপর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শ্রেণি পাঠদান শুরু হবে।শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এমনিতে সারাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। শিক্ষকরাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাচ্ছেন, অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম চলছে। আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করার সিদ্ধান্ত রয়েছে। বড় কোনও সমস্যা না হলে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হবে না।শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের বলেন, ‘১২ সেপ্টেম্বর থেকে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন শিক্ষামন্ত্রী।চাঁদপুরের ওই অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা গত সভায় ছুটি বর্ধিত করেছিলাম ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। আমরা এখন আশা করছি ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে পারবো।এসময় বিশ্ববিদ্যালয় খোলার বিষয়েও কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ব্যাপারে আমরা আবারও বসবো। কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্ত সিন্ডিকেট ও অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল দেয়। আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলেছিলাম; তারা বলেছে- অন্তত শিক্ষার্থীরা প্রথম ডোজ টিকা নিলে ভালো হয়। সেজন্য আমরা বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখ নির্ধারণ করেছিলাম অক্টোবরের মাঝামাঝি। তাদের সঙ্গে কথা বলবো। অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যদি একইসঙ্গে খুলতে চান খুলবেন কিংবা যদি ভিন্ন তারিখ নির্ধারণ করেন করবেন সেটি ওনাদের বিষয়।আমরা প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠাসের বিষয়ে দুই মন্ত্রণালয় যে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কারিগরি পরমর্শক কমিটির সঙ্গে কথা বলেছি, আগামী ৫ সেপ্টেম্বর আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা রয়েছে। সবধরনের প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার পরও দৈনিক বাধ্যমুলক প্রতিবেদন পাঠানোর একটি বিষয় রয়েছে। আমরা কঠোরভাবে মনিটরিংটা আমরা করতে পারি। এর মধ্যে মাদ্রাসা ও কারিগরি সব অন্তর্ভুক্ত থাকবে। ’এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছিলেন, বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সংক্রমণের হার কমতে শুরু করেছে। আগামী দিনে আরও কমবে। ফলে ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যে ছুটি রয়েছে তা আর বাড়ানোর প্রয়োজন পড়বে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। ফলে আমরা চাইলে ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে দিতে পারবো। যদি এর মধ্যে আর বড় কোনও সমস্যা না হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হলে সঠিকভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মনিটরিং নিশ্চিত করা হবে।

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!