মেঘনায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে অনুমোদনহীন নৌযান

28
মেঘনা উত্তাল হয়ে উঠলেও বন্ধ নেই ঝুঁকিপূর্ণ নৌযান। অনুমোদনহীন ছোট নৌযানে চলাচল করছেন ভোলা, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালীর বিভিন্ন এলাকার মানুষ। মানা হচ্ছে না নিষেধাজ্ঞার সময়ও। এসব নৌযান বন্ধ না হওয়ার জন্য নজরদারির অভাবের পাশাপাশি দায়ী করা হচ্ছে প্রয়োজন অনুযায়ী উপযুক্ত নৌযানের অভাবকে।
ভোলার মূল ভূ-খণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চল ও মনপুরা উপজেলাসহ আশপাশের জেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দাদের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নৌ-পথ।
কিন্তু দু-একটি রুট ছাড়া বেশিরভাগ রুটেই চলছে অনুমোদনহীন নৌযান। সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের অনুমোদন নেই এগুলোর। ছোট ছোট নৌযানে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে কয়েক লাখ মানুষকে।
নৌপথে চলাচলের ঝুঁকি বেশি থাকে বছরের সাত মাস। প্রতি বছর ১৫ মার্চ থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত ভোলার মেঘনার ইলিশা থেকে চরফ্যাশনের কচ্ছপিয়া এবং লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীর হাট ও নোয়াখালীর হাতিয়া পর্যন্ত নৌ-অঞ্চলকে ডেঞ্জার জোন হিসেবে ঘোষণা করে সরকার। তবে, এরপরও থেমে নেই ঝুঁকিপূর্ণ নৌযান চলাচল।
নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঝুঁকিপূর্ণ নৌযান চলাচল ঠেকাতে উদ্যোগের কথা জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এজন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালানোর কথা জানিয়েছেন তিনি।
অবৈধ নৌযান বন্ধের পাশাপাশি যাত্রী চাহিদা অনুযায়ী সব রুটে সি-ট্রাকসহ উপযুক্ত নৌযান চালুর জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।
আরো পড়ুনঃ