কুমিল্লায় এমএসবি ব্রিকস ফিল্ডকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

282
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নে অবৈধভাবে ভেকু দিয়ে গোমতী নদীর পাড়ের মাটি কাটার কারনে MSB ব্রিক্স ফিল্ডের মালিক মোঃ ইউসুফ ও মাটি কাটার ভেকুসহ গতকাল তিন জনকে আটক করে তিতাস থানা পুলিশ।
আজ সকালে তিতাস উপজেলা নিবার্হী অফিসারের অনুমতিতে ভিটিকান্দি ইউনিয়নের জগতপুর গ্রামের এমবিএস ব্রিক্সের বিরুদ্ধে বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ইং মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাটি কাটায় এমবিএস ব্রিকস এর মালিক মোঃ ইউসুফকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রুবাইয়া খানম।
প্রতিদিন রাতের আঁধারে এই ব্রিক ফিল্ডের মালিক মাটি কাটলেও ভুল ক্রমে নাম হতো ভিটিকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে। বিষয়টি আমলে নিয়ে ইউএনও অফিস গতকাল রাতে অভিযানের মাধ্যমে সরাসরি তাদের আটক করা হয়।
তিতাসে গোমতী নদীর দুই তীরে অবৈধভাবে মাটি কাটায় হুমকিতে পড়েছে নদী তীর সংলগ্ন বেড়িবাঁধ। যে কোনো সময় বেড়িবাঁধটি ধসে যেতে পারে এমন আশঙ্কায় বেড়িবাঁধের আশপাশে মাটি কাটা নিষেধ করে উপজেলা ভূমি অফিস। রাতের আঁধারে এমএসবি ব্রিকস মাটি কাঁটলেও সংবাদপত্রে নাম আসে পাশে অবস্থিত এনবিএম ব্রিকস এর।
এই বিষয়ে ন্যাশনাল ব্রিকস ম্যানুফ্যাকচার (এনবিএম) ব্রিকফিল্ডের মালিক আবুল হোসেন মোল্লা বলেন আজকের অভিযানের মাধ্যমে বিষয়টি খোলাসা হলো। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ইউএনও অফিসের নিষেধের পর আমি আর মাটি সংগ্রহ করিনি। যদিও আমার নিজের কেনা জমি থেকে মাটি কেটেছি। কিছু সংখ্যক অসাধু ব্যক্তি সাংবাদিক ভাইদের ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করিয়েছে।
তিতাস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোসাম্মাৎ রাশেদা আক্তার বলেন, যারাই আইনের তোয়াক্কা না কাজ করবে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লার বিষয়ে তিনি বলেন, ওনাকে নিষেধ করার পর তিনি মাটি কাঁটা থেকে বিরত আছেন। এই পর্যন্ত তাকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীলই মনে হয়েছে। নিষেধাজ্ঞার পর তিনি মাটি কাঁটা থেকে বিরত আছে। তবে  আইন ভঙ্গ করলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।
আরো পড়ুনঃ