ত্রিশ হাজার দর্শকে উদ্বেলিত কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়াম

কুমিল্লা কাউন্সিলর কাপ টি-২০ ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট: চ্যাম্পিয়ন রয়েল অফ গোমতী

40
মাহফুজ নান্টু, কুমিল্লা।
সকাল থেকে দলে দলে আসতে লাগলো ক্রিকেটপ্রেমীরা। বেলা যতই বাড়বে বাড়ছে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে অভিমুখে ততই মানুষের ভীড় বাড়লো। দুপুরেই আগেই অন্তত বিশ হাজার মানুষে গ্যালারী পরিপূর্ণ হয়ে গেলো। স্টেডিয়ামের বাহিরে আরো অন্তত দশ হাজার মানুষ অপেক্ষায় ছিলো। কখন স্টেডিয়ামে প্রবেশ করতে পারবে।
মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে শুক্রবার কুমিল্লা শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে কাউন্সিলর কাপ টি টুয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা উপভোগ করলো ত্রিশ হাজার দর্শক। এ যাবতকালে এত দর্শকের সমাগম আর হয় নি কুমিল্লা শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে। জাতীয় ও অনুর্ধ্ব ১৯ দলের সাথে স্থানীয় ক্রিকেটারদের সম্মিলনে একটি প্রানবন্ত বিকেল উপভোগ করলো কুমিল্লাবাসী।

বেলা পৌনে ২ টায় কাউন্সিলর কাপ টি টুয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা শুরু হয়। টচে জিতে রয়েল অব গোমতী ২০ ওভার খেলে ৫ উইকেটে ১৯৮ রান করে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করে জসিম উদ্দিন ৬০, সামছুর রহমান ৫৭। হাই প্রোফাইল ম্যাচের ১৯৯ রানের টার্গেটে জয়ের লক্ষে মাঠে নেমে শুরুটা ভালো হলেও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যার্থতায় ম্যাচ হাতছাড়া হয় ওয়েলফেয়ার ইউনাইটেডের।
১৯ ওভার খেলে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রানে গুটিয়ে যায় ওয়েলফেয়ারের ইনিংস। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রান করে মোঃ জাকির হোসেন। ফাইনাল ম্যাচে ম্যাচ রেফারীর দায়িত্বে ছিলেন খাইরুল আলম সোহাগ। খেলা পরিচালনা করেন মোহাম্মদ আজিম ও মোঃ সেলিম। স্কোরারের দায়িত্বে ছিলেন মোঃ হাবিব মোবাল্লেগ জেম্স। টুর্নামেন্ট পরিচালনায় বিভিন্ন ভাবে দায়িত্ব পালন করেন মুকিম উদ্দিন আহমেদ, আব্দুল মুকিব টিপু, জাবেদ হাসমী, আবুল কালাম আজাদ, সারোয়ার জাহান, ফয়সাল বারী মজুমদার মুকুল, কাজী শামীমসহ অন্যান্যরা।
পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথী কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার তার বক্তব্য বলেন,নিশ্চয়ই বিগত দিনে কুমিল্লা স্টেডেয়িামে এত মানুষের সমাগম আর হয় নি। মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে এমন আয়োজন নি:সন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। সাংসদ বাহার বলেন, পাকিস্থানীরা ত্রিশ বছরে বাঙ্গালি খেলোয়ারকেও জাতীয় দলে খেলার সুযোগ দেয় নি। বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখতেন বাঙ্গালিরা খেলবে। খেলার মাধ্যমে বিশ্বেও বুকে মাথা উচু করে দাড়াবে। আজ আমাদের অনুর্ধ্ব উনিশ দলের ছেলেরা ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। এই খেলোধুলার জন্য কুমিল্লা স্টেডিয়ামকে দোতলা করার প্রতিশ্রুতি দেন সাংসদ বাহার। পাশাপাশি আগামী ১৮ মার্চ কুমিল্লা স্টেডিয়ামে ১০০ পাউন্ডের কেক কেটে মুজিব শতবর্ষ উদযাপন করবেন বলে উপস্থিত দর্শকদের আমন্ত্রন করেন।
পরে সাংসদ বাহার উপস্থিত অতিথীবৃন্দদের সাথে নিয়ে বিজয়ী ও রানারআপ দলের খেলোয়াড়দের হাতে ট্রফি তোলে দেন। পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথী ছিলেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো:আবুল ফজল মীর, পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মো:আব্দুল্লাহ্ আল মামুন।
কুমিল্লা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি কাউন্সিলর কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টর প্রধান সমন্বয়ক আরফানুল হক রিফাত, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আহসান ফারুক রোমেন, কুমিল্লা ক্রিকেট কমিটির সভাপতি সাইফুল আলম রনি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন জাগ্রত মানবিকতার সাধারণ সম্পাদক তাহসীন বাহার সূচনা।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কুমিল্লা ক্রিকেট কমিটির সাধারণ সম্পাদক নাইম ইউসুফ রেইন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা,পুলিশ প্রশাসনসহ ক্রীড়াসংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
আরো পড়ুনঃ