কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০ মাসেও শেষ হয়নি যৌন হয়রানির তদন্ত

১৬৩

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ইংরেজি বিভাগের এক সহযোগী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দেওয়ার প্রায় ২০ মাসেও এ ঘটনার তদন্ত হয়নি। ঢিমেতালে চলেছে এর তদন্ত কার্যক্রম। এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য বলছেন, এই ঘটনা তার মনেই নেই।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ১৫ জানুয়ারি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও সাবেক বিভাগীয় প্রধান মোহাম্মদ আলী রেজোয়ান তালুকদারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন সান্ধ্যকালীন কোর্সের এক ছাত্রী। এর বিচার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ও ইংরেজি বিভাগের সান্ধ্য কোর্সের প্রোগ্রাম পরিচালকের (পিডি) কাছে লিখিত অভিযোগ দেন তিনি। সেখানে ওই ছাত্রী অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়া এবং পরীক্ষার হলে তার ফোন থেকে প্রমাণাদি মুছে ফেলেন। পরবর্তী সময়ে অভিযোগকারী ছাত্রী থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে অভিযুক্ত শিক্ষককে ২০ জানুয়ারি সান্ধ্যকালীন কোর্সের সব কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় এবং যৌন হয়রানি প্রতিরোধকল্পে গঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটিকে এই ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরপর প্রায় ২০ মাস পেরিয়ে গেলেও এ ঘটনার কোনও সমাধান আসেনি, জমা হয়নি তদন্ত প্রতিবেদনও।এ বিষয়ে অভিযোগকারী শিক্ষার্থী বলেন, ‘যে ঘটনা ঘটেছে আমি তার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার চাই। এই ঘটনার পর থেকে আমার আত্মবিশ্বাস নষ্ট হয়েছে, আমি নানাভাবে হেনস্তার শিকার হচ্ছি।’তদন্তকাজে ধীরগতি সম্পর্কে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন হয়রানি প্রতিরোধকল্পে গঠিত নয় সদস্যের টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান ও চার সদস্যের অভিযোগ কমটির আহ্বায়ক লোকপ্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জান্নাত লতা বলেন, ‘এটি নিয়ে আমরা অনেকবার বসেছি। দুইবার অভিযোগকারী শিক্ষার্থীকে ডাকা হলেও তিনি আসেননি। আমরা চাই খুব দ্রুত সমাধান দিতে। এক পক্ষ না আসলে এর সমাধান দেবো কীভাবে? এছাড়া অভিযোগ কমিটির সদস্য সচিব ফার্মাসি বিভাগের প্রভাষক মানতাশা তাবাসসুম শিক্ষা ছুটিতে থাকায় সবকিছু একসঙ্গে ক্লিক করছে না।’

অভিযোগ নিষ্পত্তিতে দেরি প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধকল্পে গঠিত উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বলেন, ‘এটা তো আমারও মনে নেই। প্রতিবেদন আমি এখনও পাইনি। প্রতিবেদন পেলে বিষয়টা বলা যাবে। আমি দ্রুত ওদের প্রতিবেদন দিতে বলবো।’

জেনিফার________১১ সেপ্টেম্বর ২১

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!