ভেড়ামারায় আওয়ামী লীগ নেতা সিদ্দিক হত্যার ৩৪ ঘণ্টা পেরোলেও মামলা হয়নি

জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল।।

৮৮

কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলার চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান সিাদ্দক মন্ডলকে হত্যার ঘটনায় আজ শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি। ঘটনার ৩৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এ হত্যায় জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি।

এই ঘটনায় এলাকায় থমথম বিরাজ করছে। ভেড়ামারার চাঁদগ্রামে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত আওয়ামী লীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক মন্ডল (৫২) হত্যাকারীদের ধরতে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টার সময় ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশে পুলিশকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেয় ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগ।

ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটামে কোন সুরাহা হয়নি। আলটিমেটামে কোন সুরাহা না হওয়ায় নিহত সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক মন্ডলের পরিবার হতাশ।

ভেড়ামারা থানা পুলিশ বলছে, নিহত ব্যক্তির পরিবার থেকে এজাহার জমা দেয়েছে। তবে আজ শনিবার রাতের মধ্যে মামলা হতে পারে বলে পুলিশ ও সিদ্দিকুরের পরিবার সূত্রে জানা যায়। শুক্রবার সকাল ৯টায় চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমানকে দুর্বৃত্তরা গুলি করে হত্যা করে। এ সময় তাঁর আপন তিন ভাই ও এক ভাতিজাসজ ৫জন গুলিবিদ্ধ হন। শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নিহত ব্যক্তির লাশ চাঁদগ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবুর রহমান আজ শনিবার সন্ধ্যা ৬টার সময় বলেন, নিহত ব্যক্তির পরিবার থেকে এজাহার জমা দিয়েছে। হয়তো রাতের মধ্যে মামলা হয়ে যাবে। জড়িত ব্যক্তিদের ধরতে পুলিশের একাধিক দল সম্ভাব্য সব জায়গায় অভিযান চালিয়েছে কিন্তু তাদের পাওয়া যায়নি। আশা করা যাচ্ছে খুব শিগগির কয়েকজনকে আটক করা সম্ভব হবে। চাঁদগ্রামের মোড়ে মোড়ে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি পুরো পুলিশের নিয়ন্ত্রণে।

ভেড়ামারা উপজেলার চাঁদগ্রামে গুলিতে নিহত আওয়ামী লীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক মন্ডলের ছোট ছেলে মোহাম্মদ মুজাহিদ। মুজাহিদ এবার এসএসসি পরীক্ষা দেবে। বাবাকে গুলি করার প্রত্যক্ষদর্শী সে। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে মুজাহিদ বলে, আমার কাকুরা (চাচা) বাড়ির সামনে মাঠে ঘাস কাটছিল। ওরা (প্রতিপক্ষ) কাকুদের মারে। এ সময় পাশেই আমার আব্বু খেতে কাজ করছিলেন। কাকুদের মারার খবর শুনে আমি আব্বুর কাছে যাই। আমার চোখের সামনেই আব্বুকে গুলি করল ওরা। ওরা ২০-২৫ জন ছিল। সবার হাতেই অস্ত্র ছিল।’

উল্লেখ্য, কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলার চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান সিাদ্দক মন্ডলকে প্রক্যাশে গুলি করে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় আরও ৩ ভাইসহ পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। তাঁদের কে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল ও ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে চাঁদগ্রাম চরপাড়া মাঠে এই হত্যাকাÐের ঘটনা ঘটে।

নিহত সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক মন্ডল চাঁদগ্রামের ওমর আলী মন্ডলের ছেলে। গুলিবিদ্ধরা হলেন, চাঁদগ্রামের নিহতের ভাই ও ওমর মন্ডলের ছেলে আনিসুজ্জামান ইউনুস মন্ডল (৪৮), আব্দুল খাল্লেক (৪৪), বাদশা মন্ডল (৪৪) এবং ওই গ্রামের আবু সাঈদের ছেলে আবু বক্কার কুব্বাত (৩৬) সহ ৫জন। এর মধ্যে আহত কুব্বাতের পায়ের রগ কেটে যাওয়ায় কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। র্দীঘ দিন ধরে মন্ডল ও মালিথা বংশেল মধ্যে পূর্ব শত্রæতা চলে আসছিলো । এরই জের ধরে সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক মন্ডলকে গুলি করে হত্যা করেছে।

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!