ঝিনাইদহে প্রতিপক্ষের ধাওয়া খেয়ে তিন ছাত্রলীগ নেতা নিহত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি।।

৭১

প্রতিপক্ষ ছাত্রলীগের ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘনায় তিন ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন, ঝিনাইদহ সরকারি ভেটেরিনারি কলেজের ভিপি ও সদর উপজেলার কুশাবাড়িয়া গ্রামের বাদশা মোল্লার ছেলে সাইদুজ্জামান মুরাদ বিশ্বাস (২৫), ছাত্রলীগ কর্মী ও ভেটেরিনারি কলেজের শিক্ষার্থী চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার বনেশ্বরপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে তৌহিদুল ইসলাম (২৫) ও যশোরের মনিরামপুর উপজেলার পালদিয়া গ্রামের রাখাল চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে সমরেশ চন্দ্র বিশ্বাস (২৩)।

শুক্রবার রাত ১১টার দিকে ঝিনাইদহ চুয়াডাঙ্গা সড়কের আঠারো মাইল নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ ও দমকাল বাহিনীর সদস্যরা লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় ভেটেরিনারি কলেজের জিএস সজিব হাসানকে ছাত্রলীগের প্রতিদ্বন্দ্বি গ্রুপ কুপিয়ে জখম করে।

পুলিশ ও বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে ঝিনাইদহ শহর থেকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা সাগর হোসেন সোহাগের সঙ্গে দেখা করে ক্যাম্পাসে ফিরছিলেন তারা। সদর উপজেলার কুমড়াবাড়িয়া ইউনিয়নের ঘোষপাড়ায় অবস্থিত জোহান ড্রিম ভ্যালি পার্কের কাছে পৌছালে ভেটেরিনারি কলেজের জিএস সজিব হাসানকে চলন্ত মটরসাইকেলে বসা অবস্থায় ছাত্রলীগের আরেকটি গ্রুপ কুপিয়ে জখম করে। সজিব মটরসাইকেল থেকে পড়ে গিয়ে পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেয় এবং পুলিশের সহায়তা চাইলে ঝিনাইদহ সদর থানার পুলিশ তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পৌছে দেয়।

এরপর ভেটেরিনারি কলেজের ভিপি মুরাদ বিশ্বাসসহ ছাত্রলীগের তিন কর্মী একই মটরসাইকেলে যাওয়ার সময় চলন্ত অবস্থায় তাদেরও আক্রমন করা হয়। তারা দ্রুত মটরসাইকেল চালিয়ে ১৮ মাইল নামক স্থানে পল্লী বিদ্যুতের ডিপোর সামনে পৌছালে অন্ধকারে দাড়িয়ে থাকা খুটি বোঝায় ট্রাকের (চট্রমেট্রো-চ-৮১৩৪৫৪) সাথে ধাক্কা খায়।

এ সময় ঘটনাস্থলেই নিহত হন মুরাদ বিশ্বাস, তৌহিদুর রহমান ও সমরেশ চন্দ্র বিশ্বাস। ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের উপ পরিচালক শামীমুল ইসলাম জানান, নিহতদের মাথায় আঘাত লাগে। মটরসাইকেল ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। ছাত্রলীগের একটি সুত্র জানায়, ঝিনাইদহ সরকারি ভেটেরিনারি কলেজে ডিভিএম ডিগ্রী নিয়ে শিক্ষার্থীরা মাসের পর মাস আন্দোলন করছেন। এই আন্দোলনের নেতৃত্ব দেয়া নিয়ে ওই কলেজের শিক্ষার্থী ও বর্তমান ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ফাহিম আহম্মেদের দ্বদ্ব চলছিল।

এই দ্বন্দ্বের জের ধরেই তাদের উপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেন ভেটেরিনারি কলেজের জিএস সজিব হাসান। হতাহতরা সবাই জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল ইমরান গ্রুপের সদস্য বলে জানা গেছে। বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-ইমরান জানিয়েছেন, যে গ্রুপই হামলা করুক এটা অন্যায় ও অমানবিক হয়েছে।

তিনি এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, সরকারি ভেটেরিনারি কলেজের ভিপি ও জিএস তার সঙ্গেই রাজনীতি করেন, তারা অন্য গ্রুপ করেন না। তিনি বলেন কারা হামলা চালিয়েছে তা নিশ্চত করে বলা যাচ্ছে না।

ঝিনাইদহ সদর থানর ওসি শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা জানান, ছাত্রলীগের এক গ্রুপের ধাওয়া ও হামলায় প্রথমে সজিব আহত হন। তার হাতে কোপের দাগ আছে। তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। এরপর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত তিনজনকেও একই ভাবে ধাওয়া করে। হামলা থেকে বাঁচতে গিয়ে তারা সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ তৌফিক হাসান জানান, নিহত তিনজনের মাথায় গুরুতর জখম রয়েছে। এছাড়া হামলায় আহত সজিব এখন ভালো আছে। তার বাম হাতে ধারালো অস্ত্রের কোপ রয়েছে।

আরো দেখুনঃ
error: Content is protected !!